অলিম্পিকে ১২৮ বছর পর ফিরছে ক্রিকেট

অলিম্পিকে ক্রিকেট নেই কেন? এই আক্ষেপ আর হয়তো বেশিদিন বয়ে বেড়াতে হবে না সমর্থকদের। অনেক দিন ধরেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি) চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে অলিম্পিকে ক্রিকেট ফেরাতে। এবার আনুষ্ঠানিকভাবেই বিড করেছে তারা। মঙ্গলবার দুপুরে আইসিসি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানিয়েছে এই খবর।

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ২০২৮ লস অ্যাঞ্জেলস অলিম্পিক গেমসেই ক্রিকেট দেখা যাবে। আইসিসি জানিয়েছে, ‘অলিম্পিক গেমসে ক্রিকেটের অন্তর্ভুক্তির জন্য একটি ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন করা হয়েছে। সেখান থেকে বিডে নেতৃত্ব দেওয়া হবে। আমাদের ইচ্ছা ২০২৮ লস অ্যাঞ্জেলস, ২০৩২ ব্রিসবেন এবং এরপরের আসরগুলোতেও যেন ক্রিকেট অনুষ্ঠিত হয়।

আইসিসির এই পরিকল্পনায় সমর্থন আছে ভারতের। ক্রিকেটের সবচেয়ে প্রভাবশালী বোর্ডের সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি গত সপ্তাহেই জানিয়েছিলেন, ২০২৮ অলিম্পিকে জনপ্রিয় এই খেলাটি অন্তর্ভূক্ত হবে।

আইসিসির চেয়ারম্যান গ্রেগ বার্কলে এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘আমাদের পুরো ক্রীড়া ইউনিট এই বিডের পেছনে রয়েছে এবং আমরা অলিম্পিককে ক্রিকেটের দীর্ঘ ভবিষ্যতের অংশ হিসেবে দেখছি। সারা বিশ্বে আমাদের এক বিলিয়নেরও বেশি ভক্ত রয়েছে এবং তাদের প্রায় ৯০ শতাংশ অলিম্পিকে ক্রিকেট খেলা দেখতে চায়। ক্রিকেটের স্পষ্টতই একটি শক্তিশালী এবং উৎসাহী ভক্তের ভিত্তি রয়েছে। এটি বিশেষ করে দক্ষিণ এশিয়ায়, যেখান থেকে আমাদের ভক্তদের ৭২ শতাংশ আসে। এখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও ৩০ মিলিয়নের বেশি ক্রিকেট ভক্ত রয়েছে।’

অলিম্পিকে একবারই ক্রিকেট হয়েছিল। সেটা সেই ১৯০০ সালে প্যারিসে। গ্রীষ্মকালীন প্রতিযোগিতায় সেবার গ্রেট ব্রিটেন স্বর্ণ আর ফ্রান্স রৌপ্য পদক জেতে। তবে তার পর থেকে অলিম্পিকে ক্রিকেট না রাখার মূল কারণই ছিল, বেশি সময় ব্যয়। তখন তো ছিল কেবল টেস্ট ক্রিকেট।

কিন্তু বর্তমান সময়ে ক্রিকেটের ফরমেট বদলেছে। ২০ ওভারের টি-টোয়েন্টি ফরমেটে সময় লাগে সাড়ে তিন ঘণ্টার মতো। এখন ১০০ বলের ক্রিকেট বা ১০ ওভারের ফরমেটও চলে এসেছে। তাই সময়টাকে এখন আর বড় বাধা মনে করছে না আইসিসি। তাই ১২৮ বছর পর অলিম্পিকে ক্রিকেট অন্তর্ভূক্তির সম্ভাবনা বেশ উজ্জ্বল। এখন শুধু আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসার অপেক্ষা।

Related Posts