১০ জনের তালিকা রাষ্ট্রপতির কাছে যাচ্ছে কাল

নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য সার্চ কমিটি ১০ জনের নাম চূড়ান্ত করেছে। তবে কারা এই তালিকায় আছেন তা প্রকাশ করা হবে না। মঙ্গলবার সুপ্রিমকোর্টের জাজেস লাউঞ্জে প্রায় চার ঘণ্টার বৈঠকে নামগুলো চূড়ান্ত হয়।

এর মধ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসাবে দুজন এবং নির্বাচন কমিশনার হিসাবে আটজনের নাম আছে। সার্চ কমিটির সদস্যরা নামগুলো বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রপতির কাছে জমা দেবেন। এর আগ পর্যন্ত সিলগালা অবস্থায় তালিকাটি কমিটির কাছেই থাকবে।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘সার্চ কমিটি বৈঠক করে ১০ জনের নাম চূড়ান্ত করেছে। তারা পরশু দিন (বৃহস্পতিবার) মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে এটা জমা দেবেন। উনাদের মিটিং শেষ, সবকিছু ফাইনাল করে ফেলেছেন।’ তিনি জানান, ১০ জনের নাম জমা দেওয়ার পর রাষ্ট্রপতি যেভাবে সিদ্ধান্ত নেবেন সেভাবে হবে। বৃহস্পতিবার কখন রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সার্চ কমিটির সাক্ষাৎ হবে তা জানাতে পারেননি মন্ত্রিপরিষদ সচিব।চূড়ান্ত তালিকায় থাকা নামের বিষয়ে সার্চ কমিটির একাধিক সদস্যের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও তাদের কেউই নাম বলতে রাজি হননি। একজন সদস্য বিদ্যমান কাঠামোতেই নির্বাচন কমিশন গঠনের প্রক্রিয়া এগোচ্ছে বলে ধারণা দিয়েছেন।উল্লেখ্য, গত টানা তিনটি নির্বাচন কমিশনে সিইসিসহ আমলাদের সংখ্যাধিক্য ছিল। এর বাইরে একজন করে সাবেক জেলা জজ এবং একজন সাবেক সেনা কর্মকর্তার সমন্বয়ে নির্বাচন কমিশন গঠিত হয়ে আসছে।এবারের চূড়ান্ত তালিকায়ও সচিবদের সংখ্যার আধিক্যের কথা অবহিত করে সূত্রটি জানায়, এর বাইরে সাবেক সামরিক কর্মকর্তা, জেলা জজ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নাম আছে। এরমধ্যে একজন নারী সদস্যও রয়েছেন, যিনি বিচারিক কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

অপর একটি সূত্র জানায়, ১০ জনের তালিকায় উল্লিখিত তিনটি পেশার বাইরে আরও দুই-একজনের নাম আছে, তবে কোন পেশার সেটা জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন, যারাই আছেন তাদের সবাই সমাজের পরিচিত ও গ্রহণযোগ্য মুখ। রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে তালিকা প্রকাশ হলে দেশবাসী আশাহত হবেন না বলে বিশ্বাস তার।

নির্বাচন কমিশন গঠনে মঙ্গলবার বিকালে প্রস্তাবিত নামের সংক্ষিপ্ত তালিকা থেকে ১০ জনের নাম চূড়ান্ত করতে বসেন কমিটির সদস্যরা। মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, এর আগে প্রকাশিত তালিকার বাইরে আরও কিছু নাম জমা পড়েছিল।

সব মিলিয়ে ৩২৯ নামের প্রস্তাব থেকে কয়েক দফায় ১০ জনকে বেছে নিয়েছে সার্চ কমিটি। চূড়ান্ত প্রস্তাবিত নামে কোন পেশার ব্যক্তিদের প্রাধান্য বা কোনো মহিলা সদস্য আছেন কি-না, তা জানতে চাইলে খন্দকার আনোয়ার বলেন, আমি কমিটিকে সাচিবিক সহায়তা দিয়েছি।

চূড়ান্ত বাছাইয়ের সময় আমি দূরে ছিলাম। নামের তালিকা সম্পর্কে আমি জানি না। এক প্রশ্নের উত্তরে খন্দকার আনোয়ার জানান, আইন অনুযায়ী সার্চ কমিটির সদস্যরা রাষ্ট্রপতির কাছে তালিকা জমা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। নামের তালিকাও সার্চ কমিটির কাছে রয়েছে। উনারা সরাসরি রাষ্ট্রপতির হাতে তুলে দেবেন। সার্চ কমিটির প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের সভাপতিত্বে গতকালের বৈঠকে বিচারপতি এসএম কুদ্দুস জামান, মহাহিসাব নিয়ন্ত্রক ও নিরীক্ষক (সিএজি) মুসলিম চৌধুরী এবং সরকারি কর্মকমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান সোহরাব হোসাইন, সাবেক নির্বাচন কমিশনার মুহাম্মদ ছহুল হোসাইন, লেখক-অধ্যাপক আনোয়ারা সৈয়দ হক উপস্থিত ছিলেন। প্রসঙ্গত, সম্প্রতি নির্বাচন কমিশন গঠনে প্রথমবারের মতো আইন করে সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় ৫ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি ওবায়দুল হাসানকে সভাপতি করে ছয় সদস্যর অনুসন্ধান (সার্চ) কমিটি গঠন করে দেন রাষ্ট্রপতি। আইন অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন গঠনে যোগ্যদের নাম প্রস্তাব করতে সার্চ কমিটির হাতে ১৫ কার্যদিবস অর্থাৎ ২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময় আছে। এদিকে রোববার পর্যন্ত দশটি বৈঠক শেষে সার্চ কমিটি ১২-১৩ জনের নামের সংক্ষিপ্ত তালিকা করেছে। মঙ্গলবার সর্বশেষ বৈঠকে ১০ জনের নাম চূড়ান্ত করা হয়। ১৪ ফেব্রুয়ারি কেএম নূরুল হুদার নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ শেষ হয়েছে।

Related Posts