স্বামী-সন্তান রেখে পালালেন গৃহবধূ, রাস্তায় রেখে পালালেন প্রেমিক

স্বামী-সন্তান রেখে পালালেন গৃহবধূ, রাস্তায় রেখে পালালেন প্রেমিক

বরিশালে স্বামীকে তালাক দিয়ে তিন বছরের শিশুকন্যাকে ছেড়ে প্রেমিকের সঙ্গে পালিয়ে যান এক নারী। ইচ্ছে ছিল পুরানো প্রেমিকের সঙ্গে ঘর বাঁধবেন। তবে এর এক ঘণ্টার মাথায় ওই নারীকে রাস্তায় ফেলে পালিয়ে গেছেন তার প্রেমিক। সব হারিয়ে বিচারের দাবিতে থানার বারান্দায় ঘুরছেন ওই নারী। স্বামীর ঘর, বাবার ঘর দুটোর একটিতেও হচ্ছে না জায়গা।

প্রেমিক ইমন বরিশাল সিটির ২৩নং ওয়ার্ড সর্দারপাড়ার বাসিন্দা শাজাহান হাওলাদারের ছেলে। এমন ঘটনা ঘটেছে গত ১৬ মার্চ বরিশালের শহরের ২৩ নং ওয়ার্ডের সর্দারপড়া এলাকায়।

সোমবার (১৮ মার্চ) বিকেলে জেলার বাকেরগঞ্জ থানার ওসি আফজাল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় ওই গৃহবধূর মা বাদী হয়ে একটি অপহরণ মামলা করেছে। এর ভিত্তিতে ইমনের দুলাভাই মেহেদী হাসানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তাতরকৃত মেহেদী একই এলাকার বাসিন্দা। আদালতে অপরাধীর জবানবন্দি নেওয়া হবে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্য আসামিদেরও আইনের আওতায় আনা হবে। এখনো পলাতক রয়েছে প্রেমিক ইমন।

এ বিষয়ে স্থানীয়রা জানান, ৫ বছর ধরে ইমন ও ওই নারীর প্রেমের সম্পর্ক ছিল। কিন্তু প্রেমিক বেকার থাকায় ওই নারীকে বাকেরগঞ্জ উপজেলার গারুড়িয়া ইউনিয়নের কাটাখালী গ্রামের রায়হান সঙ্গে বিয়ে দিয়ে দেয় পরিবার। কিন্তু বিয়ের পরেও স্বামী এবং প্রেমিকের সঙ্গে সমানভাবেই সম্পর্ক চালিয়ে আসছিলেন তিনি। গত ১৬ মার্চ বাকেরগঞ্জের স্বামীর বাড়ি থেকে ও নারী প্রেমিক ইমনের সঙ্গে পালিয়ে আসার সময় স্থানীয়রা তাদের আটক করে থানায় দেয় |

পরে স্থানীয়রা বিষয়টি মীমাংসায় বসলে স্বামী-সন্তান রেখে প্রেমিক ইমনের সঙ্গে চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত জানান ওই গৃহবধূ। ওই সময় পুলিশের উপস্থিতিতে ওই নারীকে খোলা তালাক দেয় তার স্বামী। তারা বরিশালে রওনা দিলে গৃহবধূকে রাস্তায় রেখে পালিয়ে যান প্রেমিক ইমন। আর তখনই বাধে বিপত্তি। এ সময় তাকে খুঁজে না পেয়ে ৯৯৯-এ ফোন দিয়ে সহায়তা চান ওই গৃহবধূ। পরে বরিশাল কোতোয়ালি থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে নিয়ে যায়। সেখান থেকে বের হয়ে বিয়ের দাবিতে ওই নারী গিয়ে বরিশাল নগরীর ২৩নং ওয়ার্ডের সর্দারপাড়া এলাকায় ইমনের বাসায় হাজির হয়।

ভুক্তভোগী ওই নারী বলেন, তার বিয়ের পর ইমন সৌদি আবার চলে যায়। ৫ দিন আগে দেশে ফিরে আসে। তার জন্য আমি সংসার ছেড়েছি, আমার স্বামী আমাকে ত্যাগ করেছে। স্বামী-সন্তান ছেড়ে এসে ইমনের প্রতারণার স্বীকার হয়েছি। এখন সে আমাকে কোথায় রাখবে সেই ভালো জানে।

ওই নারী আরও বলেন, ইমন আমাকে ব্লাকমেইল করেছে। ও বলেছে আমার কিছু গোপন ছবি আছে সেগুলো ভাইরাল করে দেবে। আমি তার সঙ্গে না গেলে ওই গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করবে বলে হুমকিও দেয়।

ভুক্তভোগী ওই নারীর মা জানান, মেয়েকে আর ঘরে তুলে নেবেন না। স্বামী-সন্তান ছেড়ে প্রেমিকের কাছে যাওয়াটা মেনে নিতে পারছেন না তিনি।

বরিশাল সিটি করপোরেশনের ২৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এনামুল হক বাহার বলেন, ইমন ছেলেটির জন্য মেয়েটি নিজেই তার সংসার ভেঙেছে, তারা দুজনই অপরাধী, তাদের দুজনেরই শাস্তি ভোগ করা উচিত।