স্বাধীনতাকে পাকিস্তানের কাছে বিক্রির চেষ্টা করেছিল : রেলমন্ত্রী

স্বাধীনতাকে পাকিস্তানের কাছে বিক্রির চেষ্টা করেছিল : রেলমন্ত্রী

রেলমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. জিল্লুল হাকিম বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে যখন দেশ এগিয়ে যাচ্ছিল, সেই সময়ে দেশীয় এবং বৈদেশিক ষড়যন্ত্রের করণে তাকে হত্যা করা হয়। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধ্বংস করার চেষ্টা করা হয়েছিল। স্বাধীনতাকে পাকিস্তানের কাছে বিক্রি করে দেওয়ার জন্য চেষ্টা করা হয়েছিল। তাদের সেই চেষ্টা সফল হয়নি। আজকে বঙ্গবন্ধুকন্যা আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে।

মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে অনুষ্ঠিত মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

রেলমন্ত্রী আরও বলেন- নেতাদের ও দেশের মানুষের যদি সদিচ্ছা থাকে, যদি দেশের প্রতি ভালোবাসা থাকে, তাহলে সিমিত সামর্থ্যের মধ্যেও দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায়। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেটা প্রমাণ করেছেন। দেশের বিরুদ্ধে এখনো ষড়যন্ত্র হচ্ছে। ষড়যন্ত্রকারীরা কোনো সময় সফল হতে পারেনি। ভবিষতেও পারবে না।

তিনি আরও বলেন- আমাদের দেশের দামাল ছেলেরা, ছাত্রছাত্রীরা, বিশেষ করে নতুন প্রজন্ম স্বাধীনতার প্রতি যেভাবে উদ্বুদ্ধ তাতে দেশের অগ্রগতি কোনো সময় থামিয়ে রাখা যাবে না। দেশ এগিয়ে যাবে। ইনশাআল্লাহ স্মার্ট দেশে পরিণত হবে। পৃথিবীর বুকে বাংলাদেশ একটি উন্নত দেশে পরিণত হবে।

মঙ্গলবার সকালে উপজেলা পরিষদ চত্বরে জাতির পিতার প্রতিকৃতি সংলগ্ন স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষ পাংশা সরকারি জর্জ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, কুচকাওয়াজ, ডিসপ্লে প্রদর্শন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ জাফর সাদিক চৌধুরীর সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। বিশেষ অতিথি হিসেবে ‍উপস্থিত ছিলেন রাজবাড়ী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ কে এম শফিকুল মোরশেদ আরুজ, পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ফরিদ হাসান (ওদুদ), রাজবাড়ী জেলা পুলিশের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (পাংশা সার্কেল) সুমন কুমার সাহা, পাংশা মডেল থানার ওসি স্বপন কুমার মুজমদার, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মো. চাঁদ আলী খান প্রমুখ।

এ সময় উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্য, বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, রাজনৈতিক ব্যক্তি ও জনপ্রতিনিধিরাসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।