সেনাবাহিনীর কার্যক্ষমতা ও মনোবল বেড়েছে-সেনাপ্রধান

অত্যাধুনিক সরঞ্জাম সংযোজনের ফলে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কার্যক্ষমতা অনেক বেড়েছে বলে জানিয়েছেন সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। এতে সদস্যদের মনোবলেও বহুলাংশে পরিবর্তন এসেছে বলে জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) সকালে সেনাসদর নির্বাচনী পর্ষদ-২০২১ (প্রথম পর্ব) সভায় অংশ নিয়ে এ কথা বলেন এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ।
সেনাসদর মাল্টিপারপাস কমপ্লেক্সে আয়োজিত বিশেষ এই সভায় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী শেখ হাসিনা। অনুষ্ঠানের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রীকে ভার্চুয়ালি সালাম জানান সেনাসদরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের গুরুত্বপূর্ণ এই সভায় সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ বলেন, সেনাবাহিনীর ফোর্সেস গোল-২০৩০-এর প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে মিঠামইন, রাজবাড়ী এবং ত্রিশালে মিলিটারি প্রশিক্ষণ এরিয়াতে নতুন সেনানিবাস স্থাপনের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।
সেনাপ্রধান জানান, ‘বিগত ২০০৯ সাল থেকে বিভিন্ন ফর্মেশনের অধীনে তিনটি ডিভিশন সদর দপ্তর, ১৪টি ব্রিগেড সদর দপ্তর এবং ছোট-বড় ১৫৪ ইউনিট প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। এ ছাড়াও ৫৬টি ছোট-বড় ইউনিট অ্যাডহক হিসেবে গঠন করা হয়েছে। এতে করে আমাদের সামরিক শক্তি ও দক্ষতা বহুলাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে।’
বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় সেনাবাহিনীর ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে উল্লেখ করে সেনাপ্রধান বলেন, ‘সেনাবাহিনীর প্রশিক্ষণ অঙ্গনে বিপুলভাবে নানাবিধ উন্নয়ন সাধিত হয়েছে, যা আমাদের সামগ্রিক সক্ষমতাকে বহুলাংশে বৃদ্ধি করেছে। সেনাবাহিনীকে আরও কার্যকর ও যুগোপযোগী করার লক্ষ্যে আপনার মেয়াদকালে প্রচুর অত্যাধুনিক যুদ্ধ সরঞ্জাম সংযোজিত হয়েছে। এই অত্যাধুনিক সরঞ্জামাদি সংযোজনের ফলে সেনাবাহিনীর কার্যক্ষমতা ও যুদ্ধোপযুক্ততা এবং সেনা সদস্যদের মনোবলও বৃদ্ধি পেয়েছে।’

তিনি জানান, ‘সেনাবাহিনীতে অটোমেটিক গ্রেনেড লঞ্চার, সারফেস-টু-এয়ার মিসাইল, অ্যাসল্ট রাইফেল, নাইট ভিশন ডিভাইস, ট্যাংকের জন্য সিমুলেটর, অত্যাধুনিক রাডার কন্ট্রোল সিস্টেমসহ উল্লেখযোগ্য সংখ্যক সরঞ্জামাদি ক্রয় প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এর সবই সম্ভব হয়েছে আপনার (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা, দূরদর্শিতা এবং প্রজ্ঞার কারণে।
উচ্চতর পদে পদায়নের ক্ষেত্রে প্রচলিত বিধি মেনেই সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের প্রতিশ্রুতিও দেন জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, ‘সেনাবাহিনীতে প্রচলিত কর্মকাণ্ডের মধ্যে সেনাসদর নির্বাচনী পর্ষদ একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং তাৎপর্যপূর্ণ ইভেন্ট। সেনাবাহিনীর উচ্চতর পদসমূহে যোগ্য অফিসারদের এই পর্ষদের মাধ্যমে পদোন্নতি প্রদানের মহান কার্যক্রম সম্পন্ন হয়। আমি আপনাকে (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) নিশ্চয়তা প্রদান করছি, এই নির্বাচনী পর্ষদ সততা, কর্তব্যবোধ, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালনে সর্বাত্মক সচেষ্ট থাকবে এবং পেশাগত দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে পদোন্নতি পর্ষদের কার্যক্রম পরিচালনা করবে। এই পর্ষদ বেশ কয়েকটি সভার মাধ্যমে সেনাবাহিনীতে উচ্চতর পদে কর্মকর্তাদের পদায়ন কার্যকর করবে। করোনা মহামারির মধ্যেও নির্বাচনী পর্ষদের এই সভা আয়োজনের অনুমতি দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ।

Related Posts