সংহতি প্রকাশে ইউক্রেন গেলেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

সংহতি প্রকাশে ইউক্রেন গেলেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

উত্তর-পূর্ব সীমান্তে রুশ বোমাবর্ষণ প্রতিরোধ করতে লড়াই করছেন ইউক্রেনের সেনাবাহিনী। এর মধ্যেই ইউক্রেনের প্রতি সংহতি জানাতে কিয়েভ গেলেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন। মঙ্গলবার (১৪ মে) ভোরে ট্রেনে করে প্রথমবার কিয়েভ পৌঁছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর জানিয়েছে।

গত মাসে কংগ্রেসে দীর্ঘ বিলম্বিত ৬১ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের সামরিক সহায়তা অনুমোদনের পর এটিই যুক্তরাষ্ট্রের কোনো শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তার প্রথম ইউক্রেন সফর।

এ বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেছেন নাম প্রকাশ না করার শর্তে ব্লিঙ্কেনের সফরসঙ্গী এক মার্কিন কর্মকর্তা। তিনি বলেন,  তার উপস্থিতি এই মুহূর্তে কঠিন পরিস্থিতিতে থাকা ইউক্রেনবাসী ও সেনাদের দৃঢ় আশ্বাস দেবে বলে আশা করছেন ব্লিঙ্কেন।

তিনি আরও বলেন, যুক্তরাষ্ট্র থেকে আসা সামরিক সহায়তা কীভাবে যুদ্ধক্ষেত্রে ইউক্রেনকে এগিয়ে রাখবে সে সম্পর্কে ধারণা দিতেই ব্লিঙ্কেনের এই সফর। গত ২৪ এপ্রিল যুক্তরাষ্ট্রের সর্বশেষ সামরিক সহায়তা ইউক্রেনে পৌঁছায়। এই সহায়তা প্যাকের মধ্যে কামান, দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রসহ অন্যান্য অস্ত্র ছিল।

সফরে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি সহ ইউক্রেনের কর্মকর্তাদের স্থায়ী মার্কিন সমর্থনের বিষয়ে আশ্বস্ত করবেন ব্লিঙ্কেন।

২০২৩ সালে কিয়েভের পাল্টা আক্রমণ ব্যর্থ হওয়ার পর ইউক্রেনের প্রায় ১৮ শতাংশের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে রাশিয়া। শুক্রবার ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভের কাছে চলে এসেছে রুশ সেনারা।