রেলসেবা অ্যাপে নয়, ওয়েবসাইটে মিলবে টিকিট

রেলসেবা অ্যাপে নয়, ওয়েবসাইটে মিলবে টিকিট

বাংলাদেশ রেলওয়ের সার্ভিস প্রোভাইডার পরিবর্তনের কারণে ট্রেনের অনলাইন টিকিট বিক্রি বন্ধ রেখেছে রেলওয়ে। গত ২১ মার্চ থেকে অনলাইনে এবং কাউন্টারে কম্পিউটারের মাধ্যমে ট্রেনের টিকিট দেওয়া হচ্ছে না।

আগামী ২৫ মার্চ পর্যন্ত অনলাইনে এই সেবা বন্ধ থাকবে। এতে যাত্রীরা ভোগান্তিতে পড়েছেন।আগামী ২৬ মার্চ থেকে বাংলাদেশ রেলওয়ের টিকিটিংয়ের দায়িত্ব নেবে সহজ লিমিটেড। ওই দিন থেকে অনলাইনে ওয়েবসাইটে এবং কাউন্টারে একযোগে টিকিট দেওয়া শুরু হবে। কিন্তু রেলসেবা অ্যাপে টিকিট দেওয়া হবে না বলে জানা গেছে।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে সহজের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা আগামী ২৬ মার্চ থেকে রেলওয়ের টিকিটিংয়ের দায়িত্ব নেব। ওই দিন থেকেই ট্রেনের টিকিট নতুন একটি ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। এতে যাত্রীদের ভোগান্তি কমে যাবে। তবে আপাতত রেলসেবা অ্যাপে টিকিট পাওয়া যাবে না। রেল কর্তৃপক্ষ আমাদের বললে রেলসেবা অ্যাপেও টিকিট দেওয়ার বিষয়ে কাজ করব।’  এদিকে নতুন ওয়েবসাইট থেকে টিকিট সংগ্রহ করতে হলে প্রথমেই প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে নতুন অ্যাকাউন্ট করতে হবে। পুরোনো ওয়েবসাইট বা অ্যাপের অ্যাকাউন্টের তথ্য দিয়ে নতুন সাইটে লগইন করা যাবে না।  গত ১৫ ফেব্রুয়ারি সহজের সঙ্গে রেলওয়ে টিকিটিং সিস্টেম পরিচালনার জন্য পাঁচ বছরের চুক্তি হয়েছে। আগামী ২৬ মার্চ থেকে ‘সহজ’-এর পরিচালনায় দেশের মানুষ রেলওয়ের টিকিট কাটতে পারবেন। পরবর্তী ১৮ মাসের মধ্যে প্রয়োজন অনুযায়ী নতুন ইন্টিগ্রেটেড টিকিটিং সিস্টেম চালু করে তা দিয়ে আরও উন্নত ও সহজ উপায়ে টিকিট পরিচালনা করবে।  উল্লেখ্য, বাংলাদেশ রেলওয়েতে ১৯৯৪ সালে কম্পিউটারভিত্তিক টিকেটিং সিস্টেম চালু করা হয়। প্রথম পর্যায়ে ২৭টি স্টেশনে কম্পিউটারের মাধ্যমে টিকিট ইস্যু করা শুরু হয়। বর্তমানে ১০৪টি আন্তনগর ট্রেনের টিকিট ৭৭টি স্টেশনে কম্পিউটারের মাধ্যমে ইস্যু করা হচ্ছে। দৈনিক প্রায় ৯০ হাজার ও মাসিক প্রায় ২৭ লাখ যাত্রীর টিকিট কম্পিউটারের মাধ্যমে ইস্যু করা হয়। এ সকল টিকিটের ৫০ শতাংশ অর্থাৎ প্রায় ১৩ লাখ টিকিট অনলাইন/মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে ইস্যু করা হতো