রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ১ হাজার ৭ কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণা

১৬ জুন ২০২২ আয় ও ব্যয় সমপরিমাণ ধরে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের (রাসিক) ২০২২-২৩ অর্থবছরের ১ হাজার ৭ কোটি ১৯ লক্ষ ৬৯ হাজার টাকার প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় নগর ভবনের সিটি হলরুমে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে এই বাজেট ঘোষণা দেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের অর্থ ও সংস্থাপন স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও মাননীয় মেয়র জননেতা এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন।

এরআগে সকালে সিটি কর্পোরেশনের বিশেষ সাধারণ সভায় ২০২১-২০২২ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেট ও ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট সর্বসম্মতিক্রমে অনুমোদন হয়। সংবাদ সম্মেনের শুরুতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের শহীদ সদস্যবৃন্দ, জাতীয় চার নেতা শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ, শহীদ ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী ও শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের সকল শহীদদের গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করেন রাসিক মেয়র মহোদয়।

সংবাদ সম্মেলনে রাসিক মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ২০২১-২০২২ অর্থ বছরে বাজেটের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১০৮০ কোটি ২২ লক্ষ ৮৯হাজার ৫৩৬ টাকা ১৭ পয়সা মাত্র। সংশোধিত বাজেটে এর আকার দাঁড়িয়েছে ৭৬৯ কোটি ০২ লক্ষ ৯৪ হাজার ৭৪৪ টাকা ৩৬ পয়সা মাত্র। বাজেট বাস্তবায়নের হার ৭১% এর বেশি। যা ইতোপূর্বে কখনও হয়নি। এদিকে আয় ও ব্যয় সমপরিমাণ ধরে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরে বাজেটের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১ হাজার ৭ কোটি ১৯ লক্ষ ৬৯ হাজার ৩২৩ টাকা ১০ পয়সা মাত্র। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও রাসিক মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, দ্বিতীয় মেয়াদে দায়িত্বগ্রহণের পর থেকে আমি ও আমার পরিষদ নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিসমূহ বাস্তবায়ন এবং রাজশাহীকে সবুজ, পরিচ্ছন্ন, আধুনিক, উন্নত, বাসযোগ্য ও মডেল মহানগরী হিসেবে গড়ে তুলতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। বিগত চার বছর নিরলস পরিশ্রম করে রাজশাহী মহানগরীকে পরিবেশবান্ধব ও বাসযোগ্য নগরীরূপে গড়ে তোলার স্বীকৃতিস্বরূপ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রীয়ভাবে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনকে পরিবেশ পদক-২০২১ প্রদান করে পুরস্কৃত করেছেন।

এ গৌরব সমগ্র মহানগরবাসীর। আমি ইতোমধ্যে পদকটি প্রিয় রাজশাহীবাসীকে উৎসর্গ করেছি। এছাড়া ১৮৬৭ কোটি টাকার রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন প্রকল্প ১৪.০৬.২০২২ তারিখে একনেক সভায় অনুমোদন হওয়ায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার প্রতি ধন্যবাদ ও অশেষ কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। মহানগরজুড়ে যে পরিকল্পিত উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ চলছে, তার অন্যতম লক্ষ্য হচ্ছে রাজশাহী মহানগরীকে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পরিবেশবান্ধব, পরিচ্ছন্ন, বাসযোগ্য, আধুনিক, কর্মচঞ্চল ও আলো ঝলমলে মহানগরীতে পরিণত করা।

যার অনেকটাই বাস্তবায়ন ইতোমধ্যে আমরা করতে পেরেছি। আগামীতে রাজশাহী মহানগরীকে শুধু বাংলাদেশের মধ্যে নয়, দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে অন্যতম মডেল মহানগরী হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। এই লক্ষ্য অর্জনে রাজশাহীবাসী ও সম্মানিত কাউন্সিলরবৃন্দের সহযোগিতায় ধাপে ধাপে এগিয়ে যাচ্ছি। নগরীর উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে সংবাদ সম্মেলনে রাসিক মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ১৬৪ কোটি ১৯ লাখ টাকা ব্যয়ে আলুপট্টি মোড় হতে তালাইমারী মোড় পর্যন্ত আড়াই কিলোমিটার সড়ক চারলেন সড়কে উন্নীত, ১৮৯ কোটি ৩৪ লাখ টাকা ব্যয়ে বিমান চত্বর হতে বিহাস পর্যন্ত ৬.৭৯৩ কিলোমিটার ফোরলেন সংযোগ সড়ক, ১২৬ কোটি ৩৯ লাখ ব্যয়ে উপশহর মোড় হতে মালোপাড়া, রাণীবাজার মোড় হয়ে সাগরপাড়া বটতলা মোড় পর্যন্ত সড়ক, নগরীর বিলসিমলা থেকে কাশিয়াডাঙ্গা সড়ক ফোরলেনে উন্নীত করা হয়েছে। সড়কটির উভয় পাশে দৃষ্টিনন্দন ফুটপাথ নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

দৃষ্টিনন্দন সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়েছে। সড়কের আইল্যান্ডে বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে সৌন্দর্য্যবৃদ্ধি করা হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্থ বীরশ্রেষ্ঠ মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর সরণি সড়কটির রক্ষণাবেক্ষণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়াও প্রকল্পের আওতায় ৩৬.৮১ কিলোমিটার নতুন সড়ক, রাস্তা সংস্কার ৫৮.৬৯ কি.মি. ড্রেন ৩৩.৬০ কি.মি এবং ফুটপাত ১২.৪৩ কি.মি কাজ বাস্তবায়িত হয়েছে। এছাড়াও সড়কসমূহে দৃষ্টিনন্দন সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়েছে। মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ সোনাদীঘি মোড় হতে সদর হাসপাতাল মোড় পর্যন্ত সড়কটির দুই পাশে দৃষ্টিনন্দন ফুটপাথ নির্মাণ এবং প্রশস্তকরণ ও উন্নয়ন কাজ সমাপ্ত হয়েছে। কার্পেটিং নতুন সড়ক ৪.৩২ কি.মি. কার্পেটিং রাস্তা সংস্কার ১.৪২কি.মি এবং সিসি রাস্তা ৫৩.২৯ কি.মি. এবং ৩৬.৭২ কি.মি. ড্রেন নির্মাণ কাজ সমাপ্ত হয়েছে। ১৯৩ কোটি ২৯ লক্ষ ৭৭ হাজার টাকা ব্যয় সাপেক্ষে ‘রাজশাহী মহানগরীর জলাবদ্ধতা দূরীকরণার্থে নর্দমা নির্মাণ (৩য় পর্যায়)’ শীর্ষক প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হয়েছে।

প্রকল্পের আওতায় ৬.৩৬ কিলোমিটার প্রাইমারী, ১৯.২৯ কিলোমিটার সেকেন্ডারি এবং ৬৭.৭৫ কিলোমিটার টারশিয়ারি নর্দমা নির্মিত হয়েছে। যান্ত্রিক পদ্ধতিতে স্বল্প সময়ের মধ্যে নর্দমার কাঁদামাটি অপসারণে ৯টি প্রাইমারি নর্দমার পাশে মোট ৮.৬৭ কিলোমিটার সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে। প্রকল্পটির আওতায় নির্মিত নর্দমাসমূহে মহানগরীর পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থায় ব্যাপক উন্নতি সাধিত হয়েছে। সমন্বিত নগর অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় চলমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে সিটি মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ২৯৩১ কোটি ৬১ লক্ষ ৮১ হাজার টাকা ব্যয় সাপেক্ষে ‘রাজশাহী মহানগরীর সমন্বিত নগর অবকাঠামো উন্নয়ন’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় মহানগরীর উন্নয়নে ১২১৫ কোটি ২৬ লাখ টাকার টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ১০৪০ কোটি ৫৮ লাখ টাকার কার্যাদেশ প্রদান করা হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় চলমান কাজের সামগ্রিক অগ্রগতি ৫৫%।

অবশিষ্ট কাজ আগামী অর্থবছরের মধ্যে শেষ হবে বলে আশা করা যায়। মহানগরীর ৩০টি ওয়ার্ডে ক্ষতিগ্রস্থ ও নতুন রাস্তা এবং নর্দমা নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। সিএন্ডবি মোড়ে বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল নির্মিত হয়েছে। মহানগরীর যানজট নিরসনে ভদ্রা, শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান চত্ত্বর, বর্ণালী, নতুন বিলসিমলা, বহরমপুর, রাজশাহী কোর্ট এবং নতুনপাড়া রেলওয়ে ক্রসিং ।

Related Posts