• রবি. অক্টো ২৪, ২০২১

১০ হাজার মানুষ পানিবন্দি রাজবাড়ীতে

সেপ্টে ৩, ২০২১

পদ্মার পানি অব্যাহত বৃদ্ধির কারণে দুর্ভোগ কমেনি রাজবাড়ীর জেলা সদর উপজেলাসহ ৫টি উপজেলার বানভাসীদের। এসব মানুষ গত ১ মাসের বেশি সময় পানিবন্দি থাকায় খাবার, বিশুদ্ধ পানি ও নিত্যপণ্যের চরম সংকটে দিনাতিপাত করছেন

জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, রাজবাড়ীতে শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) পদ্মার পানি ৮ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমার ৬৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। রাজবাড়ী সদর উপজেলার মিজানপুর, বরাট, চন্দনী ও খানগঞ্জ গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া, ছোট ভাকলা ও দেবগ্রাম কালুখালী উপজেলার রতনদিয়া ও কালীকাপুর বালিয়াকান্দি উপজেলার নারুয়া এবং পাংশা উপজেলার হাবাসপুর ও বাহাদুরপুর এই ৫টি উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের প্রায় ১০ হাজার মানুষ পানিবন্দি রয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বন্যদুর্গত এসব এলাকায় মানুষ অনাহারে-অর্ধাহারে দিন পার করছেন। তাদের বেশির ভাগেরই ঘরে নেই খাবার, রান্নার জন্য নেই পর্যাপ্ত শুকনো কাঠ, গবাদি পশুর খাবার শেষ হয়ে দুর্ভোগ যেন আরও বেড়েছে। এছাড়া পানিতে বাড়ি-ঘর তলিয়েও যাওয়ায় অনেকেই নৌকায় বাস করছেন, কেউ কেউ আশ্রয় নিয়েছেন বাঁধে চর আমবাড়ীয়া গ্রামের বাবলু জানান, শিশু, গবাদি পশুর খাদ্য ও থাকার স্থান এবং বিশুদ্ধ খাবার পানি নিয়ে সবচেয়ে বেশি সমস্যায় আছি আমরা। বন্যাদুর্গত অপর এক ব্যক্তি বলেন, সবখানে বন্যার পানি উঠে যাওয়ায় আয়ের সংস্থান নেই। আমরা যারা দিনমজুর কাজ না থাকায় খুব কষ্টে চলছে আমাদের পরিবার। সরকারিভাবে কেউ কেউ ১০ কেজি করে চাল ও শুকনা খাবার পেলেও আমরা অনেকেই কিছুই পাইনি।  জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন অফিসার সৈয়দ আরিফুল হক জানান, ৭ হাজার ৫ শত ১৫ জনের তালিকা করা হয়েছে। এর মধ্যে ৬ হাজার ৪ শত ৯৮ জনের মধ্যে ১০ কেজি করে চাল ও শুকনা খাবার বিতরণ করা হয়েছে। ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত রয়েছে।