দ্বিতীয়বার মেয়ে হওয়ায় পায়ের নিচে পিষে হত্যায় বাবার ফাঁসি

সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে দ্বিতীয়বার মেয়ে হওয়ায় ঘুমন্ত অবস্থায় পায়ের নিচে পিষে হত্যা করেন বাবা। নিজের মেয়েকে হত্যার দায়ে বদিউজ্জামান (২৮) নামে এক যুবককে ফাঁসির রায় দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন আদালত। তা ছাড়া আদালত অন্য একটি ধারায় তাকে সাত বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড এবং ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন। জরিমানা না দিলে তাকে আরও তিন মাসের কারাভোগ করতে হবে। বৃহস্পতিবার সকালে সিরাজগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক বেগম সালমা খাতুন এ রায় দেন। সাজাপ্রাপ্ত বদিউজ্জামান বেলকুচি উপজেলার মুকুন্দগাতি গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে। রায় ঘোষণার সময় আসামি আদালতের কাঠগড়ায় ছিলেন। ওই আদালতের অতিরিক্ত পিপি শামসুল আলম মামলার নথির বরাতে জানান, একটি মেয়েসন্তান থাকাবস্থায় আরও একটি মেয়ের জন্ম হলে বদিউজ্জামান অসন্তুষ্ট হন। এ মেয়েটিকে একাধিকবার হত্যার হুমকি দেন বদিউজ্জামান। ২০১৯ সালের ১২ সেপ্টেম্বর স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়ার পর বদিউজ্জামান মেয়েটিকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। পর দিন রাতে স্ত্রীর অগোচরে ৯ মাসের ঘুমন্ত মেয়েকে পায়ের নিচে পিষে হত্যা করেন বদিউজ্জামান; তার পর লাশ বাড়ির পাশে ডোবায় ফেলে দেন। তার স্ত্রী বাদী হয়ে বদিউজ্জামানকে আসামি করে বেলকুচি থানায় হত্যা মামলা করেন। পুলিশ তদন্ত শেষে তার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেন আদালতে। অতিরিক্ত পিপি বলেন, মেয়েকে হত্যার পর বদিউজ্জামান দীর্ঘদিন পলাতক ছিলেন। পরে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। আসামির উপস্থিতেই রায় ঘোষণা করা হয়।

Related Posts