বৈশ্বিকভাবে কমেছে ডলারের দাম

ইউরো, পাউন্ড ও ইয়েনের মতো প্রতিদ্বন্দ্বী বিভিন্ন মুদ্রার সঙ্গে প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে বৈশ্বিকভাবে দশমিক ২ শতাংশ কমেছে ডলারের দাম।বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) ইউরোপিয়ান ট্রেডিং আওয়ার্স সূচক বিশ্লেষণ করে জানা গেছে এ তথ্য জানা গেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। এর আগে বুধবার এই পতনের হার ছিল ১ শতাংশ, যা গত ৫ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ পতন।

ডলারের এ পতনের মূল কারণ যুক্তরাষ্ট্রে মাসের পর মাস ধরে চলা ব্যাপক মুদ্রাস্ফীতি। গত জুন মাসে মুদ্রাস্ফীতির কারণে দেশটির অভ্যন্তরেই ডলারের মান ১ দশমিক ৩ শতাংশ পড়ে গিয়েছিল। সেই অবস্থার কোনো উন্নতি এখন পর্যন্ত হয়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের কমার্সব্যাংক বৃহস্পতিবার এক বার্তায় বলেছে, ‘বুধ ও বৃহস্পতিবারের তথ্য স্পষ্ট ইঙ্গিত দিচ্ছে যে দেশে মুদ্রাস্ফীতি এখন সর্বোচ্চ পর্যায়ে রয়েছে। ফেডারেল রিজার্ভ সিস্টেমের (যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ব্যাংক) উচিত ডলারের মূল্য বাড়ানো ও মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনী ব্যবস্থা নেওয়া।’

মার্কিন ব্যবসায়ী ও ব্যাংকারদের অবশ্য দৃঢ় বিশ্বাস, সেপ্টেম্বরের নীতি নির্ধারণী বৈঠকে ডলারের দাম ৭৫ বেসিস পয়েন্ট বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। জুন মাসে মুদ্রাস্ফীতি বৃদ্ধির পর থেকে এ পর্যন্ত দুই দফায় ডলারের দাম বাড়িয়েছে ফেডারেল রিজার্ভ সিস্টেম।

 

Related Posts