দিনাজপুরে বিয়ের প্রলোভনে তরুণীকে ধর্ষণ, কারাগারে ব্যবসায়ী

দিনাজপুরে বিয়ের প্রলোভনে তরুণীকে ধর্ষণ, কারাগারে ব্যবসায়ী

দিনাজপুরে বিয়ের প্রলোভনে তরুণীকে ধর্ষণ মামলায় রাহমাতুর রাফসান অর্ণব (২৪) নামের এক রেস্তোরাঁ ব্যবসায়ীকে গ্রেফতারের পর আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (৩১ মার্চ) বিকেলে তাকে কারাগারে পাঠান আদালত। এরআগে বুধবার (৩০ মার্চ) রাতে তাকে গ্রেফতার করে কোতোয়ালি থানা পুলিশ। গ্রেফতার অর্ণব সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার কর্ণমূর্তি গ্রামের জাহিদুল ইসলামের ছেলে। তিনি দিনাজপুর শহরের পাহাড়পুর ষষ্টীতলা এলাকার মাহফুজা বেগমের বাড়ির চারতলায় ভাড়া থাকতেন। অর্ণব শহরের গণেশতলা এলাকার লেগেসি রেস্টুরেন্ট নামের একটি প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ওই রেস্তোরাঁয় খাবার খেতে গেলে ভুক্তভোগী তরুণীর মোবাইল নম্বর নিয়ে রাখেন অর্ণব। পরে মোবাইলে কথা বলার মাধ্যমে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর থেকে বিয়ের প্রলোভনে ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে নিয়ে গিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। বুধবার দিনগত রাতে তরুণীকে দিনাজপুরের বিরল উপজেলায় বেড়াতে নিয়ে যান অর্ণব। রাত সাড়ে ৮টার দিকে পাহাড়পুরের ভাড়া বাড়ির চারতলায় নিয়ে যান এবং বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ করেন। এ সময় তরুণী বিয়ের জন্য চাপ দিলে অর্ণব অস্বীকার করে। এক পর্যায়ে মেয়েটি চিৎকার দিলে ফ্ল্যাটের মালিক ও ভাড়াটিয়ারা এগিয়ে এসে দরজায় নক করেন। পরে দরজা খুলে দিলে বিষয়টি জানতে পেরে তারা অর্ণবকে আটক করেন এবং পুলিশকে খবর দেন। পরে পুলিশ এসে তাকে থানায় নিয়ে যায়। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার দুপুরে ভিকটিম বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় একটি ধর্ষণ মামলা করেন (মামলা নম্বর ৬৮)। এ মামলায় আটক অর্ণবকে গ্রেফতার দেখায় পুলিশ। দিনাজপুর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাফফর হোসেন বলেন, আসামির সাতদিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে। তবে রিমান্ড শুনানির জন্য এখনো দিন ধার্য করেননি আদালত। আগামীকাল (শুক্রবার) তরুণীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে।