বাজারে এলো আকর্ষণীয় ডিজাইনের পালসার

সব জল্পনার অবসান ঘটিয়ে হাজির হলো নতুন পালসার। বুধবার (২২ জুন) নতুন পালসার এন ১৬০ প্রকাশ্যে এনেছে বাজাজ অটো। পালসার ২৫০ সিরিজ থেকে এ মোটরসাইকেলের ডিজাইন অনুপ্রাণিত। নতুন মোটরসাইকেলে থাকছে ১৬৪.৮২ সিসি অয়েল কুল ইঞ্জিন। এ ইঞ্জিনে ১৬পিএস শক্তি এবং ১৪.৬৫ এনএম টর্ক পাওয়া যাবে।

এক নজরে নতুন পালসারের দাম ও ফিচার্স দেখে নিন।

ভারতের বাজারে বাজাজ পালসার এন ১৬০ -এর দাম শুরু হচ্ছে ১ লাখ ২২ হাজার ৮৫৪ রুপি থেকে। বেস ভ্যারিয়েন্টে থাকছে সিঙ্গেল চ্যানেল এবিএস (ABS)। ডুয়াল চ্যানেল এবিএসসহ বাজাজ পালসার এন ১৬০ কিনতে ১ লাখ ২৭ হাজার ৮৫২ রুপি (দিল্লিতে এক্স শো-রুম) খরচ হবে। সিঙ্গেল চ্যানেল থেকে ডুয়াল চ্যানেল এবিএস ভ্যারিয়েন্ট কিনতে ৪ হাজার ৯৯৯ রুপি বেশি খরচ করতে হবে। পালসার এন ১৫০-এর চেয়ে ১৪ হাজার ৩৯৪ টাকা বেশি দামে লঞ্চ হলো নতুন বাজাজ পালসার এন ১৬০। বাজাজ পালসার এন ১৬০ সিসি সেগমেন্টে হিরো এক্সট্রিম ১৬০-আর, ইয়ামাহা এফজেড-এস এফআই ভি৩.০, সুজুকি জিক্সার, হোন্ডা এক্স ব্লেড , টিভিএস অ্যাপাসি আরটিআর ১৬০, ৪-ভি -এর মতো মোটরসাইকেলের সামনে কড়া প্রতিযোগিতার সম্মুখীন হবে নতুন পালসার।

নতুন কী থাকছে?

নতুন বাইকে ২৫০ সিসি মডেলের হেডল্যাম্প ডিজাইন ব্যবহার করেছে বাজাজ অটো। এই বাইকে প্রোজেক্টর হেডল্যাম্পের সঙ্গেই থাকছে এলইডি ডিআরএল ইন্ডিকেটরে বাল্ব ব্যবহার হলেও টেললাইটে এলইডি দিয়েছে পুনের কোম্পানিটি। আগের মতোই এ মডেলেও থাকছে স্প্লিট সিট। আপরাইট আর্গোনমিক্সের জন্য এ বাইকে সিঙ্গেল পিস হ্যান্ডেলবার ব্যবহার হয়েছে।

নতুন বাজাজ পালসার এন ১৬০ তে ব্যবহার হয়েছে ১৬৪.৮২ সিসি অয়েল কুল ইঞ্জিন। এ ইঞ্জিনে ১৬পিএস শক্তি এবং ১৪.৬৫ এনএম টর্ক পাওয়া যাবে। পালসার ১৬০ -এর থেকে এ ইঞ্জিনে কম শক্তি মিলবে। যদিও টর্কের হিসাবে এগিয়ে থাকবে নতুন মডেল। যা এ বাইকের রাইডিং অভিজ্ঞতাকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলবে।

পালসার ২৫০ যে চেসিসে তৈরি হয়েছে নতুন বাজাজ পালসার এন ১৬০ -তেও একই চেসিস দেখা যাবে। সিঙ্গেল চ্যানেল এবিএস ভার্সনে ৩১ এমএম টেলিস্কোপিক ফর্ক ও ডুয়াল চ্যানেল এবিএস ভার্সনে ৩৭ এমএম টেলিস্কোপিক ফর্ম থাকছে। সঙ্গে থাকছে মনোশক।

সিঙ্গেল ও ডুয়াল চ্যানেল এবিএস ভ্যারিয়েন্টে এ মোটরসাইকেল কেনা যাবে। ডুয়াল চ্যানেল এবিএস ভার্সনের সামনের চাকায় ৩০০ এমএম ডিস্ক ব্রেক ও সিঙ্গেল চ্যানেল এবিএস ভার্সনের সামনের চাকায় ২৮০ এমএম ডিস্ক ব্রেক ব্যবহার হয়েছে। দুটি ভ্যারিয়েন্টেই পেছনের চাকায় থাকছে ২৩০ এমএম ডিস্ক ব্রেক। থাকছে দুটি ১৭ ইঞ্চি চাকা। সামনের চাকায় ১০০ সেকশন টায়ার ও পিছনের চাকায় ১৩০ সেকশন টায়ার ব্যবহার হয়েছে।

Related Posts