বাংলাদেশ সাগরপথে ইউরোপে যাওয়ার তালিকায় ফের শীর্ষে

বাংলাদেশ সাগরপথে ইউরোপে যাওয়ার তালিকায় ফের শীর্ষে

মাত্র কয়েক দিন হলো ভূমধ্যসাগরে সংকটাপন্ন অবস্থা থেকে বাংলাদেশিসহ ৮৭ জন অভিবাসনপ্রত্যাশীকে উদ্ধার করেছে ইতালির মানবিক সংস্থা ‘ইমার্জেন্সি’র উদ্ধারকারী জাহাজ ‘লাইফ সাপোর্ট’। ৩ মে সন্ধ্যায় তাদের উদ্ধার করা হয় বলে জানায় সংস্থাটি। উদ্ধারের ২০ ঘণ্টা আগে তারা লিবিয়ার জাওয়াইয়া উপকূল থেকে রওনা হয়েছিলেন। ছোট একটি নৌকায় গাদাগাদি করে উঠেছিলেন এই অভিবাসনপ্রত্যাশিরা। নৌকায় কোনও খাবার বা পানীয় ছিল না। উদ্ধারকারী জাহাজ নৌকার কাছে পৌঁছালে উদ্ধারকর্মীরা দেখতে পান, নৌকাটিতে পানি ঢুকছিল। নৌকার যাত্রীদের মধ্যে শিশু ও সন্তানসম্ভবা নারীও ছিলেন।

ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে এভাবেই ইতালি কিংবা ইউরোপের দেশগুলোতে যাচ্ছেন লাখো অভিবাসী। এই বছরের জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত ১৭ হাজার ১৬৯ জন সমুদ্রপথে ইতালি প্রবেশ করেছেন বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর। এর মধ্যে ২৩ শতাংশ বাংলাদেশি নাগরিক, যা সংখ্যায় ২ হাজার ৬৭০ জন। এই পরিসংখ্যান বাংলাদেশকে সমুদ্র পাড়ি দেওয়ার তালিকায় শীর্ষে রেখেছে। বাংলাদেশের পরেই রয়েছে সিরিয়া, সাগরপথের অভিবাসীদের মধ্যে যাদের অনুপাত ১৮ দশমিক ৩ শতাংশ এবং সংখ্যায় ২ হাজার ৮৪ জন।

এই তালিকায় আরও আছে— তিউনিশিয়া, মিশর, গিনি, পাকিস্তান, মালি, গাম্বিয়া, ইরিত্রিয়া, সুদান, ইথিওপিয়া ও সেনেগালের মতো দেশ।

উল্লেখ্য, ২০২৩ সালে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপ প্রবেশে বাংলাদেশের অবস্থান চতুর্থ ছিল। ২০২২ সালে ছিল তৃতীয় এবং এর আগে ২০২১ সালে এই তালিকায় শীর্ষে ছিল বাংলাদেশ। ২০২০ ছিল দ্বিতীয় অবস্থানে। এবার ফের তিন মাসে আবার এখন শীর্ষ অবস্থানে চলে এসেছে বাংলাদেশ।