বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলতে পারবে না উইলিয়ামসন

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে রানার্স-আপ হয়েছিল নিউজিল্যান্ড। কিন্তু তারপরই যেন জিততে ভুলে গেছে সব ফর‌ম্যাটের শক্তিশালী এই দলটি। বিশ্বকাপের পরপরই ভারতের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশের পর টেস্টেও ভরাডুবি কিউইদের।

এবার পাওয়া গেল বড় দুঃসংবাদ। চোটের কারণে সম্ভবত আগামী দুই মাসের জন্য মাঠের বাইরে চলে যেতে পারেন অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। আগেই জানা গিয়েছিল, কনুইয়ের চোটে ভুগছেন উইলিয়ামসন। তবে এখনই হয়ত অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন নেই। কিন্তু বিশ্রামে থাকতে হবে তাকে। আর তাই স্বাভাবিকভাবেই ঘরের মাঠে আসন্ন বাংলাদেশের বিপক্ষে দুই টেস্ট সিরিজে খেলতে পারছেন না তিনি। এছাড়া অস্ট্রেলিয়ায় সীমিত ওভারের সিরিজেও তাকে পাবে না দল। তবে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে বিরতি কাটিয়ে ফিরতে পারেন কিউই এই অধিনায়ক। জানুয়ারিতে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে হবে বাংলাদেশের বিপক্ষে দুই টেস্টের সিরিজ। আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের নতুন চক্রের অংশ এই সিরিজের প্রথম ম্যাচ শুরু হবে আগামী ১ জানুয়ারি, মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে। দ্বিতীয় টেস্ট ক্রাইস্টচার্চে ৯ জানুয়ারি। জানা গেছে, আইপিএলে খেলার সময়ই কনুইয়ে চোট পেয়েছিলেন কেন উইলিয়ামসন। এরপর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে আরও একবার চোট পান কনুইতে। তবে তারপরও ভারতের বিপক্ষে কানপুরে প্রথম টেস্টে তিনি খেলেছিলেন। কিন্তু মুম্বাইয়ে দ্বিতীয় টেস্টে খেলতে পারেননি তিনি। যদিও নিউজিল্যান্ডের কোচ গ্যারি স্টিড জানিয়েছেন, এখনই অস্ত্রোপচারের কোনো প্রয়োজন নেই, তবুও উইলিয়ামসনের চোট চিন্তায় রাখছে দলকে।  কারণ আগামী ফেব্রুয়ারি-মার্চে হতে যাওয়া দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দুই টেস্টের সিরিজেও তাকে পাওয়া যাবে কি না, সে বিষয়েও তেমন কোনো আশার কথা শোনা যাচ্ছে না।গ্যারি স্টিড বলেন, ‘তার সেরে ওঠা নিয়ে আমরা কোনো সময়সীমা বেঁধে দিতে চাচ্ছি না। এটা সম্পূর্ণ নির্ভর করছে তার কনুইয়ের ওপর। আমার মনে হয়, টেস্ট দলে থাকলে অনুশীলনে ও ম্যাচের ব্যাটিংয়ে অতিরিক্ত সময় কাটাতে হয়, যা তার জন্য বেশি চাপের হয়ে যায়।’ দলের সেরা তারকার এমন পরিস্থিতির জন্য তাকেই দুষলেন কোচ। গ্যারি স্টিড বলেন, সে কোনো ক্রিকেট ম্যাচই মিস দিতে চায় না। দলের খেলার পাশাপাশি বাইরের খেলাগুলোতেও সে থাকছে। আর তাই নিজেই পরিস্থিতি কঠিন করে তুলছে সে। 

Related Posts