বন্যার কবলে শাবিপ্রবি ক্যাম্পাস, শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম সিরাজুন্নেসা ছাত্রীহল, শিক্ষক কোয়ার্টার, কেন্দ্রীয় মসজিদ, প্রায় সব শিক্ষাভবন, আইআইসিটিটি ভবনের সামনে পানি উঠেছে। এছাড়া উপাচার্য ভবন, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ভবনের সামনেও আধাফুট পানি দেখা যায়, লেক ও কয়েকটি পুকুরের পাড় ভেসে পানি গড়াতে দেখা যায়।

 
ছাত্রীহলের রাস্তায় পানি উঠায় ভোগান্তিতে পড়েছে আবাসিক হলের ছাত্রীরা। এতে হাঁটু পরিমাণ পানি ডিঙিয়ে ছাত্রীদের হাঁটাচলা করতে দেখা যায়। এছাড়াও ক্যাম্পাস এলাকায় পরিবহন চলাচলেও বিঘ্ন ঘটছে।
 
বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগ ও সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের আবাসিক শিক্ষার্থী সায়মন আক্তার পুষ্প বলেন, সকাল থেকে হলের সামনের রাস্তা ডুবতে শুরু করেছে। পানি এত দ্রুত বেড়ে যাচ্ছে যে মেয়েদের দুই হলের মাঝের রাস্তাও ডুবে গেছে। ক্যাম্পাসে চলাচলকারী অটো কিংবা টমটম কিছুই হলের সামনে আসতে চাচ্ছে না। হলে আমরা পানিবন্দি হয়ে পড়েছি।
 
বাংলা বিভাগ ও প্রথম ছাত্রী হলের শিক্ষার্থী জান্নাতুল নাঈম নিশাত জানান, সিলেটে একাধারে বৃষ্টির কারণে বন্যার কবলে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা। প্রথম ছাত্রী হলের (জাহনারা ইমাম ছাত্রী হল) ভেতরে ও আশেপাশে পানি উঠে যাওয়ার কারণে পানি তোলার মটর পাম্পেও সমস্যা দেখা দিয়েছে। এতে করে খাবার পানির ব্যাপক সমস্যা দেখা দিয়েছে। এছাড়া সকাল থেকে বিদ্যুৎ না থাকার কারণে দুর্ভোগে পড়েছে ছাত্রীরা।
 শাবিপ্রবি কেন্দ্রের সমন্বয়ক অধ্যাপক ড. মো. রাশেদ তালুকদার বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা কেন্দ্রীয়ভাবে মনিটরিং হচ্ছে। ‘চ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় শিক্ষার্থী সংখ্যাও কম। আমাদের সবধরনের প্রস্তুতি আছে। আমরা শুক্রবারের অনুষ্ঠিতব্য পরীক্ষা সুষ্ঠু ও নিরাপদে সম্পন্ন করতে পারব। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ক্যাম্পাসে ভারি বর্ষণ ও উজানের পাহাড়ি ঢলের পানিতে প্লাবিত হয়েছে। এতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলের শিক্ষার্থীদের। তিনি আরও বলেন, যেকোনো সমস্যায় শিক্ষার্থীরা আমাদের জানালে আমরা দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

Related Posts