প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের পর : রওশন এখন তো আর সময় নেই

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের পর : রওশন এখন তো আর সময় নেই

ধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের পর গণভবন থেকে বেরিয়ে জাতীয় পার্টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদ এক প্রশ্নের জবাবে সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘এখন তো আর সময় নেই। আর কী বলবেন।’

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তবে কী আলোচনা হয়েছে, তা বিস্তারিত জানাননি।

মঙ্গলবার (১২ ডিসেম্বর) দুপুরে রওশন গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে যান। তিনি গণভবন থেকে বের হওয়ার পর সাংবাদিকদের কয়েকটি প্রশ্নের জবাব দেন।

নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী কিছু বলেছেন কি না জানতে চাইলে রওশন বলেন, ‘এখন তো আর সময় নেই। আর কী বলবেন।’

জানুয়ারির ৭ তারিখের নির্বাচনে সমর্থন আছে উল্লেখ করে রওশন বলেন, ‘জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান আমাদের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করেননি। আমার ছেলের জায়গায় উনি ইলেকশন করছেন। ওর কথা তার মনে নাই।’

জি এম কাদেরের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টির (জাপা) সঙ্গে জোট না করতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে অনুরোধ জানিয়ে রওশন এরশাদ বলেন, নির্বাচনে জি এম কাদেরের সঙ্গে জোট করলে সুফল আসবে না। কারণ তার (জি এম কাদের) কর্মকাণ্ডে আমার সমর্থন নেই।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টি অংশ নেওয়ার ঘোষণা দিলেও রওশন এরশাদ নির্বাচনে না যাওয়ার কথা সাফ জানিয়ে দেন। এবার এ নিয়েই গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার আলাপ হয়েছে।

জাতীয় পার্টির নেতাদের প্রতি সমর্থন আছে কি না জানতে চাইলে রওশন বলেন, ‘আমাদের ইচ্ছে করে বাদ দিয়েছে। কেন সমর্থন থাকবে?’

রওশন এরশাদ সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় সংসদ সদস্য মসিউর রহমান রাঙা সাংবাদিকদের বলছিলেন, রওশন এরশাদ কথা বলার মতো অবস্থায় নেই। সাংবাদিকদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলবেন তাদের নেতা কাজী মামুনুর রশিদ।

জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব মো. মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, নির্বাচন নিয়ে জি এম কাদেরের কর্মকাণ্ডে আমাদের সমর্থন নেই। তিনি জোর করে জাতীয় পার্টি দখল করেছেন। তাই জাতীয় পার্টির সঙ্গে যেন কোনো জোট না হয় সেজন্য প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছেন রওশন এরশাদ।

তিনি আরও বলেন, দলের আড়াই থেকে তিনশ নেতাকর্মীকে অন্যায়ভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। যোগ্য প্রার্থীদের মনোনয়ন না দিয়ে অপমান করা হয়েছে। জাতীয় পার্টির সঙ্গে যেন জোট না হয় সে অনুরোধ জানিয়েছি। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, উনি দলীয় পরিষদে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন।

এর আগে দুপুর পৌনে ১টার দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে গণভবনে যান জাতীয় পার্টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদ। এ সময় সঙ্গে ছিলেন তার মুখপাত্র মামুনুর রশীদ ও ছেলে সাদ এরশাদ। গত মাসে ২৮৮ আসনে প্রার্থী ঘোষণা করে জাতীয় পার্টি। এবার জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের দুটি আসন ঢাকা-১৭ এবং রংপুর-৩ থেকে দলটির মনোনয়ন পেয়েছেন চেয়ারম্যান জি এম কাদের।

এরশাদের মৃত্যুর পর ২০১৯ সালের অক্টোবরে রংপুর-৩ আসনে হওয়া উপনির্বাচনে জয়ী হয়ে সংসদ সদস্য হয়েছিলেন তার ছেলে রাহগির আল মাহি সাদ এরশাদ। ধারণা করা হয়েছিল, এবারও তিনি এই আসনে মনোনয়ন পাবেন। প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদের জন্য ময়মনসিংহ-৪ আসন খালি রাখা হয়। কিন্তু পছন্দের আসনে মনোনয়ন না পেয়ে নির্বাচন করতে অস্বীকৃতি জানান রওশন এরশাদ ও সাদ এরশাদ। গত ১৫ নভেম্বর দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তপশিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। তপশিল অনুযায়ী ভোট হবে আগামী ৭ জানুয়ারি।