পছন্দের পোশাক না পেয়ে কলেজছাত্রের আত্মহত্যা

পছন্দের পোশাক না পেয়ে কলেজছাত্রের আত্মহত্যা

বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলায় দরিদ্র বাবা পূজায় চাহিদামতো পোশাক দিতে না পারায় এক কলেজছাত্র অভিমানে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

মঙ্গলবার সকালে উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নের ছোট কঞ্চি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।  নিহতের নাম কনক চন্দ্র সরকার (১৯)। তিনি নন্দীগ্রাম উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নের ছোট কঞ্চি গ্রামের দিনমজুর খগেন চন্দ্র সরকারের ছেলে। তিনি উপজেলার হাটকড়ই ডিগ্রি কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন।  নন্দীগ্রাম থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ এ তথ্য দিয়েছেন। স্বজনরা জানান, খগেন চন্দ্র সরকার দিনমজুরি করে সংসার ও সন্তানদের লেখাপড়ার খরচ বহন করেন। এতে তাকে হিমশিম খেতে হয়। দুর্গাপূজা শুরুর আগে তিনি ছেলে কনককে পোশাক কেনার জন্য এক হাজার টাকা দেন। ওই টাকায় শার্ট, প্যান্ট ও জুতা না হওয়ায় কনক আরও দুই হাজার টাকা দাবি করেন। বাবা আর টাকা দিতে না পারায় কনক অভিমান করেন। মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে কনক শয়নকক্ষের আড়ার সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন।  তবে এর আগে ঘরে উচ্চ শব্দে সাউন্ড বক্স চালু করেন। বাড়ির লোকজন টের পেয়ে রশি কেটে তার নিথর মরদেহ নামিয়ে আনেন।  নন্দীগ্রাম থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ জানান, কলেজছাত্রের মরদেহ বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হচ্ছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে তার মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ব্যাপারে নন্দীগ্রাম থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

অনলাইন ডেস্ক