পাকিস্তানে তালেবানের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধ, নিহত ৪ সেনা

পাকিস্তানি তালেবানের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় দেশটির চার সেনা নিহত হয়েছেন। পাকিস্তানের সেনাবাহিনী এক বিবৃতিতে এ তথ্য নিশ্চিত করে জানিয়েছে, সশস্ত্র গোষ্ঠীটি ও নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে বন্দুক যুদ্ধ হলে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। এই মাসের শুরুর দিকে যুদ্ধ বিরতি প্রত্যাহারের পরই এটাই এখন পর্যন্ত ভয়াবহ হামলা। শুক্রবার (৩১ ডিসেম্বর) আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

জানা গেছে, পাকিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা আফগানিস্তানের সীমান্ত এলাকায় তালেবানের (পাকিস্তানি তালেবান) সাবেক শক্ত ঘাঁটির দুটি আস্তানায় অভিযান চালায়। প্রথম অভিযানটি পরিচালনা করা হয় উত্তর-পশ্চিমের ট্যাঙ্ক জেলায়। অন্য অভিযানটি উত্তর ওয়াজিরিস্তান জেলায় চালানো হয়। বিবৃতিতে বলা হয়, নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা উত্তর ওয়াজিরিস্তানের মীর আলি শহরের সন্দেহভাজন আস্তানায় অভিযান চালাচ্ছিল। এরপর দুই পক্ষের মধ্যে তীব্র গুলি বিনিময় হয়। দুই অভিযানেই সেনা সদস্যরা নিহত হন। তবে ওয়াজিরিস্তান থেকে একজনকে গুলি ও অস্ত্রসহ গ্রেফতার করা হয়েছে। চলতি মাসের শুরুর দিকে পাকিস্তানি তালেবানের হামলায় দেশটির একজন পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হন। তিনি উত্তর-পশ্চিম পাকিস্তানের একটি পোলিও টিকাদানকারী দলের পাহারায় নিয়োজিত ছিলেন। পাকিস্তান সরকারের সঙ্গে এক মাসের যুদ্ধবিরতি শেষ হওয়ার পর এটা তাদের প্রথম হামলা ছিল। পাকিস্তান তালেবান ২০০৭ সাল থেকে পাকিস্তান সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই করছে। কয়েকটি জিহাদি গোষ্ঠীর সমন্বয়ে পাকিস্তান তালেবান গঠিত। বিদেশি জঙ্গি সংগঠন হিসেবে এ গোষ্ঠীটি যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের তালিকায় রয়েছে। গত কয়েক বছর ধরে পাকিস্তান তালেবানের হামলায় দেশটিতে হাজার হাজার বেসামরিক নাগরিক ও নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য নিহত ও আহত হয়েছেন। এখনো ওই গোষ্ঠীর চার থেকে পাঁচ হাজার যোদ্ধা সক্রিয় রয়েছে।