• রবি. অক্টো ২৪, ২০২১

নতুন চুক্তি না হওয়ায় ক্ষতির মুখোমুখি বার্সেলোনা

জুলা ১, ২০২১
নতুন চুক্তি না হওয়ায় ক্ষতির মুখোমুখি বার্সেলোনা

‘ফ্রি এজেন্ট’ হয়ে গেছেন লিওনেল মেসি। বার্সেলোনার সঙ্গে মেসির এক মৌসুমের চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়েছে। অথচ নতুন চুক্তিতে আবদ্ধ হননি আর্জেন্টাইন তারকা।

চাইলেই ম্যানসিটি, ম্যানইউর মতো ক্লাবে চলে যেতে পারেন তিনি। পাড়ি জমাতে পারেন ইতালিয়ান ক্লাবেও।

তবে এখনও পর্যন্ত বার্সেলোনার কর্মকর্তাদের বিশ্বাস, মনোমালিন্যই হোক, যত সমস্যাই আসুক না কেন, ঘরের ছেলে ঘরেই থাকবে। বার্সার সঙ্গে ১৩ বছরের সম্পর্ক ছিন্ন করবেন না মেসি।

এদিকে আর্জেন্টিনার বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রকাশ, কোপা আমেরিকায় মগ্ন মেসি। এ মুহূর্তে বার্সার সঙ্গে চুক্তি নিয়ে মাথা ঘামচ্ছেন না তিনি। দেশকে কোপার শিরোপা এনে দেওয়াই মূল লক্ষ্য মেসির। কোপা মিশন শেষ করেই তবে ইউরোপের ফুটবল ও নিজের ক্যারিয়ার নিয়ে ভাববেন মেসি। আপাতত দেশ নিয়েই ভাবছেন।

বার্সার সঙ্গে মেসি নতুন চুক্তিতে আবদ্ধ হবে কি না সাংবাদিকদের এই প্রশ্নে ক্লাবটির সভাপতি একটি শব্দ উচ্চারণ করেছেন -রিলাক্স। মানে দেরিতে হলেও আমরা শান্ত রয়েছি। লাতিন আমেরিকার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই শেষে মেসি বার্সাতেই ফিরবেন। এমনটাই দৃঢ় বিশ্বাস হুয়ান লাপোর্তার।

এদিকে কোপা আমেরিকা শেষ হতে এখনো ১০ দিন বাকি। এই ১০ দিনে মুক্ত মেসির জন্য বেশ ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে ক্লাব বার্সেলোনা।

খেলাবিষয়ক ইউরোপীয় গণমাধ্যম স্পোর্তের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মেসির সঙ্গে নতুন চুক্তির আগ পর্যন্ত ক্লাবটি জার্সিতে মেসির ছবি ব্যবহার করতে পারবে না বার্সা। ২০২১-২২ মৌসুম সংশ্লিষ্ট কোনো বিষয়েই মেসির ছবি ব্যবহার করতে পারবে না কাতালান ক্লাবটি। এমনকি ক্লাবের দোকান মেসির জার্সি বিক্রিও করতে পারবে না। এ সময়ে অনেক অর্থ আয় থেকে বঞ্চিত হবে বার্সেলোনা।

এদিকে নতুন এক দুর্ভাবনায় পড়েছে বার্সেলোনা।

এএসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিয়মানুযায়ী কোপা আমেরিকা চলাকালীন যদি মেসি চোট পান তাহলে তার চিকিৎসার দায়িত্ব বার্সেলোনার থাকবে না। একইভাবে চোটের কারণে তিনি যদি লম্বা সময় বাইরে থাকেন তাহলে ফিফা থেকে কোনোরকম ক্ষতিপূরণ পাবে না ক্লাব।

বার্সার অন্যতম ফরোয়ার্ড উসমান দেম্বেলের উদাহরণটি এখানে দৃশ্যমান। চলতি ইউরো কাপে ফ্রান্সের হয়ে খেলার সময় উসমান দেম্বেলে চোট পেয়ে প্রায় চার মাসের জন্য ছিটকে গেছেন।

ফিফা প্রোটেকশন প্রোগামের আওতায় এই ফরোয়ার্ডের মাঠের বাইরে থাকাকালীন সময়ের প্রতি দিন বাবদ ২০ হাজার ৫৪৮ ইউরো করে পাবে কাতালান ক্লাবটি, যার সর্বোচ্চ মেয়াদ এক বছর।

কিন্তু কোপা আমেরিকায় মেসি চোট পেয়ে মাঠের বাইরে চলে গেলে কোনো অর্থ পাবে না বার্সা।

বার্সেলোনার জন্য আছে আরও কিছু সমস্যা।

মেসি এখন ফ্রি এজেন্ট, তাই তার সঙ্গে চুক্তি করলে লা লিগা এটাকে নতুন খেলোয়াড় কেনা হিসেবে দেখতে পারে। সেক্ষেত্রে এটি ক্লাবের খেলোয়াড়দের ‘বেতনের সীমায়’ প্রভাব ফেলতে পারে।

এমনিতেই করোনার প্রভাবের শুরু থেকে বার্সেলোনার আর্থিক অবস্থা মন্দা চলছে। স্পেনের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের খবর, খেলোয়াড়দের মে মাসের বেতন দিতে ১০ কোটি ইউরো ব্যাংক ঋণ নিতে হয়েছিল বার্সার। সবমিলিয়ে ক্লাবটির দেনার পরিমাণ এখন ১২০ কোটি ইউরো প্রায়।

এমন দৈন্যদশায় মেসিকে হারিয়ে ক্লাবটি আরো ক্ষতির মুখোমুখি হচ্ছে।

সূত্রঃ যুগান্তর