দেশে ২৪ ঘণ্টায় আরও ২৪১ মৃত্যু, শনাক্ত ১০২৯৯

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ২৪১ জন মারা গেছে। সবচেয়ে বেশি মৃত্যু ঘটেছে ঢাকা বিভাগে। এই সময়ে ৪২ হাজার নমুনা পরীক্ষায় নতুন কভিড রোগী শনাক্ত হয়েছে ১০ হাজার ২৯৯ জন। রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গতকাল পর্যন্ত দেশে কভিড রোগী শনাক্ত হয়েছে ১৩ লাখ ৫৩ হাজার ৬৯৫ জন। তাদের মধ্যে ২২ হাজার ৬৫২ জন মারা গেছেন। সরকারি হিসেবে গতকাল সেরে উঠেছেন ১৬ হাজার ৬২৭ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১২ লাখ পাঁচ হাজার ৪৪৭ জন। দেশে এ মুহূর্তে সক্রিয় কভিড-১৯  রোগীর সংখ্যা এক লাখ ২৫ হাজার ৫৯৬ জন।

নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় জুলাই মাসজুড়ে দৈনিক শনাক্তের হার প্রায় ৩০ শতাংশ ছিল। কয়েকদিনের ধারাবাহিকতায় এই হার কমে রোববার দাঁড়িয়েছে ২৪ দশমিক ৫২ শতাংশে। গতকাল শুধু ঢাকা বিভাগেই চার হাজার ৫৭৬ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে, যা মোট শনাক্তের প্রায় অর্ধেক। গত ২৪ ঘণ্টায় ১০৫ জন মারা গেছে এ বিভাগে। চট্টগ্রাম বিভাগে ৫৯ জন এবং খুলনা বিভাগে মারা গেছে ৩০ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে মোট ৪২ হাজার তিনটি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এ পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে ৮১ লাখ ১৭ হাজার ৪১০টি। নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় এ পর্যন্ত শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৬৮ শতাংশ। আর এ পর্যন্ত মৃত্যুর হার দাঁড়িয়েছে ১ দশমিক ৬৭ শতাংশে।

গতকাল ঢাকা জেলায় দেশের সর্বোচ্চ তিন হাজার ৩৫৮ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ ছাড়া ঢাকা বিভাগের গাজীপুরে ১৩১, কিশোরগঞ্জে ১৩১, মানিকগঞ্জে ১৫৩, নারায়ণগঞ্জে ১৭৭, নরসিংদীতে ১৪১, রাজবাড়ীতে ১৪৪ এবং টাঙ্গাইলে ১০৪ জনের শরীরে সংক্রমণ ধরা পড়েছে।

চট্টগ্রাম বিভাগের মধ্যে চট্টগ্রাম জেলায় ৯৩০, কক্সবাজারে ১৭৫, ফেনীতে ১৪১, নোয়াখালীতে ১৮৮, লক্ষ্মীপুরে ১৩০, চাঁদপুরে ১৩০, কুমিল্লায় ৩৪৬ এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১৩৯ জন কভিড রোগী শনাক্ত হয়েছে। রাজশাহী বিভাগের মধ্যে রাজশাহী জেলায় ১৯৭, সিরাজগঞ্জে ১২২ এবং বগুড়ায় ১৭৪ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে।

এ ছাড়া উল্লেখযোগ্য জেলাগুলোর মধ্যে ময়মনসিংহে ২২৪ জন, রংপুরে ২৮০, খুলনায় ১৩০, কুষ্টিয়ায় ১১৪, বরিশালে ১৭৭, সিলেটে ২৯০ এবং মৌলভীবাজারে ১৮৮ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে।

ঢাকা বিভাগে গতকাল মারা যাওয়া ১০৫ জনের মধ্যে ৫০ জনই ছিলেন ঢাকা জেলার। চট্টগ্রাম বিভাগে মৃত ৫৯ জনের মধ্যে ১৫ জন চট্টগ্রাম জেলার, ১১ জন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার এবং ১০ জন কুমিল্লা জেলার বাসিন্দা ছিলেন।

এ ছাড়া গতকাল খুলনা বিভাগে ৩০, রাজশাহী ও বরিশাল বিভাগে ১২ জন করে, সিলেট বিভাগে ৭ জন, রংপুর বিভাগে ১০ জন এবং ময়মনসিংহ বিভাগে ৬ জন মারা গেছে।

মৃত ২৪১ জনের মধ্যে ১৩১ জনের বয়স ৬০ বছরের বেশি, ৫৪ জনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে, ২৮ জনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে, ১৭ জনের বয়স ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে, ৯ জনের বয়স ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে, একজনের বয়স ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে এবং একজনের বয়স ১০ বছরের কম।

মৃতদের মধ্যে ১২৮ জন পুরুষ ও ১১৩ জন নারী। ১৮৮ জন সরকারি হাসপাতালে, ৪৪ জন বেসরকারি হাসপাতালে এবং ৩ জন বাসায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

Related Posts