দিল্লিতে রাত্রিকালীন কারফিউ

দিল্লিতে রাত্রিকালীন কারফিউ

করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রমের বিস্তার ঠেকাতে ভারতের রাজধানী নয়া দিল্লিতে রাত্রিকালীন কারফিউ জারি করেছে কর্তৃপক্ষ। এছাড়া বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ঘোষিত উদ্বেগজনক এই ভ্যারিয়েন্টের বিস্তার রোধে দিল্লিতে  ‘হলুদ সতর্কতা’  হিসেবে নতুন করে একগুচ্ছ বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে বলে মঙ্গলবার ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নতুন বিধিনিষেধ অনুযায়ী দিল্লির বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে অর্ধেক কর্মী নিয়ে কাজ করতে হবে, দোকানপাট ও শপিংমলগুলো জোড়-বিজোড় তারিখের ভিত্তিতে খোলা থাকবে আর বিয়েতে ২০ জনের বেশি মানুষ অংশ নিতে পারবে না। মঙ্গলবার থেকে নতুন বিধিনিষেধ কার্যলকর হবে বলে জানা গেছে।  মিক্রন ঠেকাতে এর আগে ভারতের বেশ কয়েকটি রাজ্যে রাত্রীকালীন কারফিউসহ কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।  এদিকে, দৈনিক পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে বিশ্বে রেকর্ড মাত্রা ছুঁয়েছে কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা। করোনা ভাইরাসের আবির্ভাবের দু’বছর পর এবং বিশ্বজুড়ে টিকাকরণ অভিযান শুরু হওয়ার এক বছর পরে আক্রান্তের সংখ্যা রেকর্ড মাত্রা ছুঁয়েছে। তবে দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যা রেকর্ড মাত্রা ছোঁয়ার অন্যতম কারণ হিসেবে নতুন রূপ ওমিক্রনকেই দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা। ওমিক্রন এখনও পর্যন্ত কোভিডের সর্বশেষ পরিবর্তিত এবং সব থেকে সংক্রমণযোগ্য রূপ। এই রূপ বিশ্বব্যাপী দ্রুত শক্তিশালী হয়ে উঠছে। একই সঙ্গে, সাধারণ টিকাগুলি ওমিক্রন রূপের উপর কার্যকর নয় বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিজ্ঞানীরা। গত সাত দিনে বিশ্বজুড়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮,৪১,০০০। এক মাস আগে দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনার ওমিক্রন রূপ প্রথম শনাক্ত হয়েছিল। তখনকার তুলনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে প্রায় ৪৯ শতাংশ।

অনলাইন ডেস্ক