তাবলিগে বের হয়ে নিখোঁজ চার যুবক

তাবলিগ জামাতে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে ২০ দিন ধরে নিখোঁজ সিলেটের ওসমানীনগরের চার যুবক। তাদের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনও বন্ধ।

তারা ওসমানীনগর উপজেলার দয়ামীর গ্রামের বাসিন্দা। তবে তারা সিলেটের দুটি মারকাজ থেকে চিল্লায় যাননি বলে নিশ্চিত করেছে পুলিশ। নিখোঁজরা হচ্ছেন-উপজেলার দয়ামীর ইউনিয়নের দয়ামীর গ্রামের সোহরাব আলীর ছেলে হাসান সায়িদ (২৪), মানিক মিয়ার ছেলে সাইফুল ইসলাম তুহিন (২৪), শেখ শামসুল হক স্বপনের ছেলে শেখ আহমেদ মামুন (২৩) ও মৃত সিরাজুল ইসলামের ছেলে সাদিকুর রহমান (৩৩)। এ ঘটনায় ওসমানীনগর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন নিখোঁজ শেখ আহমেদ মামুনের বাবা শেখ শামসুল হক স্বপন। জিডি সূত্রে জানা গেছে, গত ১৫ নভেম্বর তাবলিগ জামাতে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হন ওই চার যুবক। কয়েকদিন পর পরিবারের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করলে তাদের ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। তারা কাদের সঙ্গে তাবলিগ জামাতে গেছেন সে ব্যাপারে তথ্য নেই পরিবারের কাছে। নিখোঁজদের মধ্যে শেখ আহমেদ মামুন সিলেটের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় লিডিং ইউনিভার্সিটির ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী। এছাড়া হাসান সায়িদ একজন মুফতি, সাদিকুর রহমান দয়ামীরের লন্ডন ফিটনেসের ট্রেইনার ও সাইফুল ইসলাম তুহিন স্থানীয় একটি মাদরাসায় নবম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেছেন বলে জানা গেছে। তাদের মধ্যে হাসান সায়িদ ও সাদিকুর রহমান বিবাহিত। নিখোঁজ শেখ আহমেদ মামুনের বাবা শেখ শামসুল হক স্বপন বলেন, ‘তাবলিগ জামাতে যাওয়ার কথা বলে তারা চারজন একসঙ্গে বাড়ি থেকে বের হয়। এরপর তারা আর বাড়ি ফেরেনি বা যোগাযোগও করেনি। অনেক খোঁজাখুঁজির পর তাদের সন্ধান না পেয়ে থানায় জিডি করেছি। পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক টিম আমাদের সঙ্গে কথা বলে তথ্য নিয়েছে। কিন্তু তাদের সন্ধান ২০ দিনেও পাওয়া যায়নি।’ জানতে চাইলে ওসমানীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম মাঈন উদ্দিন বলেন, নিখোঁজের ঘটনায় থানায় জিডি হয়েছে। তাদের সন্ধানে পুলিশের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক সংস্থা কাজ করছে। বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Related Posts