জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী অমিতোষ হালদার আত্মহত্যা করেছেন। বৃহস্পতিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) ভোর ৫টায় বাড়ির পাশের একটি গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় তার মরদেহ পাওয়া যায়।

গোপালগঞ্জ জেলার সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি, ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশন্স) মিজানুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, পুলিশের ধারণা, অমিতোষ হালদার আত্মহত্যা করেছেন। কয়েকপাতা সুইসাইড নোটও পাওয়া গেছে। মরদেহ এখন ময়নাতদন্তের জন্য গোপালগঞ্জে সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। কেন ও কী কারণে সুইসাইড করেছেন- এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানা যাবে। অমিতোষ হালদার গোপালগঞ্জ সদর থানার পাটিকেলবাড়ি ইউনিয়নের ভূপেন হালদারের ছেলে। তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সংবাদিকা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। তার মৃত্যুতে গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকসহ তার সহপাঠীরা। তার মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করে একই ব্যাচের শিক্ষার্থী রাফসান জানি খান বলেন, উনি আমাদের দুই বছরের সিনিয়র ছিলেন।বিভিন্ন সমস্যায় তিনি দুই বছর গ্যাপ দিয়েছেন। সিনিয়র হওয়ায় আমরাও জোর করে সম্পর্ক করতে যেতাম না। উনিও দরকার ছাড়া আমাদের সঙ্গে কম কথা বলতেন। ধারণা করা হচ্ছে, হতাশা থেকেই এই মৃত্যু। খুবই অসাধারণ মানুষ ছিলেন তিনি।