চুয়াডাঙ্গায় পৃথক ভুট্টা ক্ষেতে দুই মরদেহ উদ্ধার

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলায় পৃথক দু’টি ভুট্টাক্ষেত থেকে ২টি মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার (২১ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১২টার দিকে মরদেহ দু’টি উদ্ধার করে দর্শনা থানা পুলিশ।

নিহতরা হলেন, চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার পারকৃষ্ণপুর-মদনা ইউনিয়নের সাড়াবাড়িয়া গ্রামের মৃত ইদ্রিস আলীর ছেলে শওকত আলী সকো (৬০) ও একই উপজেলার দর্শনা পৌর এলাকার পরানপুর গ্রামের মাঝেরপাড়ার মৃত গোলাম জোয়ার্দ্দারের ছেলে হাফিজুর রহমান ওরফে হাফিজ (৫০)।

স্থানীয়রা জানান, দামুড়হুদা উপজেলার সড়াবাড়িয়া গ্রামের ইদ্রিশ আলীর ছেলে শওকত আলী (৬০) শনিবার দুপুরে বাড়ি থেকে নিখোঁজ হন। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে স্থানীয় কৃষকরা মাঠে কাজ করতে গিয়ে ভুট্টা ক্ষেতের ভেতর শওকত আলীর লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেন। খবর পেয়ে দর্শনা থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে শওকত আলীর লাশ উদ্ধার করে। লাশ উদ্ধারের সময় পুলিশ শওকত আলীর সেখান থেকে একটি কীটনাশকের (বিষ) বোতল উদ্ধার করে। অপরদিকে একই উপজেলার পরানপুর গ্রামের গোলাম জোয়ার্দ্দরের ছেলে হাফিজুর রহমান (৫০) রোববার বিকেলে গরুর জন্য গ্রামের পার্শ্ববর্তী মাঠে ঘাস কাটতে যান। তিনি একটি ভুট্টা ক্ষেতে ঘাস কাটাকালীন স্ট্রোক করেন। এবং স্ট্রোকে তার মৃত্যু হয়। স্থানীয় কৃষকরা সোমবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে মাঠে কাজ করতে গিয়ে ভুট্টা ক্ষেতে হাফিজুর রহমানের মৃতদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে বেলা ১২টার দিকে হাফিজুর রহমানের লাশ উদ্ধার করে। লাশ উদ্ধারের সময় হাফিজুর রহমানের হাতের মধ্যে কাচতে এবং ঘাস ছিল। দর্শনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএইচএম লুৎফুল কবীর জানান, স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে দু’টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। লাশ দু’টি থানা হেফাজতে রয়েছে। তিনি আরও জানান, সুরতহাল প্রতিবেদন শেষে মৃত্যুর সঠিক কারণ নির্ণয়ে মরদেহ দু’টি ময়নাতদন্তের জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হবে। এ ঘটনায় আইনগত বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।

Related Posts