চাকরির ফাঁদ, ৭ প্রতারক গ্রেফতার

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেওয়া হতো আকর্ষণীয় বেতনে চাকরির বিজ্ঞাপন। প্রতারণার ফাঁদে পড়ে নিঃস্ব হয়েছেন কয়েকশ’ চাকরিপ্রত্যাশী। অবশেষে অর্থ আত্মসাতে জড়িত ওই প্রতারক চক্রের ৭ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। তাদের কাছ থেকে ভুয়া চাকরির ফর্মসহ বিভিন্ন নথি জব্দ করা হয়।ডিজিটাল যুগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেই চাকরির বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে অনেক প্রতিষ্ঠান। এই সুযোগে ভুয়া প্রতিষ্ঠান সিনথিয়া সিকিউরিটিজ সার্ভিসের নামে কখনও ম্যানেজারসহ বিভিন্ন পদে ফেসবুকে আকর্ষণীয় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিত চক্রটি। এজন্য চাকরিপ্রত্যাশীদের কাছ থেকে নিত টাকা। প্রতারক ফাঁদে পড়ে টাকা খুইয়েছেন প্রায় ৭ থেকে ৮শ’ মানুষ।

অভিযোগ পেয়ে চক্রের সদস্যদের ধরতে অভিযানে নামে র‌্যাব-১ সদস্যরা। রোববার (২০ ফেব্রুয়ারি) রাতে রাজধানীর উত্তরখান এলাকা থেকে চক্রের ৭ সদস্যকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। এসময় তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় ভুয়া নিয়োগপত্র, চাকরির ফর্ম, আইডি কার্ডসহ প্রতারণায় ব্যবহৃত নানা আলামত।

সোমবার (২১ ফেব্রুয়ারি) এক ব্রিফিংয়ে র‌্যাব জানায়, প্রতারক চক্রের মূলহোতা জুয়েল-মায়া দম্পতি। আট মাস ধরে প্রতারণা চালিয়ে আসছিল চক্রটি। র‌্যাব- ১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, একটি নির্দিষ্ট তারিখে তাদেরকে অফিসে এসে ইন্টারভিউ দিতে বলা হত। প্রার্থীরা ইন্টারভিউ দিতে আসলে তাদের কাছ থেকে ভর্তি ফর্ম, ট্রেনিং এবং আইডি কার্ড বাবদ ১২ হাজার ৫০০ টাকা জামানত আদায় করা হত। কোম্পানির প্রতারণার ব্যাপারটি জানতে পারলে জামানতের টাকা ফেরত চাইতে গেলে তাদেরকে বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি দেখানো হত।   তিনি আরও বলেন, সিকিউরিটি গার্ড নিয়োগের নামে কোম্পানিটিতে প্রতারণা চলছিল। কিন্তু এখনও পর্যন্ত তারা কোনো সিকিউরিটি গার্ড নিয়োগ দিয়েছে বলে আমরা কোনো তথ্য প্রমাণ পাইনি।চক্রটির মূল টার্গেট ছিল প্রত্যন্ত অঞ্চলের অল্প শিক্ষিত সাধারণ মানুষ।

Related Posts