গ্রিনপাস বাধ্যতামূলক করল ইতালি

ইতালিতে আজ থেকে (শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর) সব গুরুত্বপূর্ণ স্থানে প্রবেশে গ্রিনপাস বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। তবে এক জরিপে গ্রিনপাস নীতির প্রতি বেশির ভাগ মানুষ সমর্থন দিয়েছেন।

প্রবাসী বাংলাদেশিরাও নিরাপত্তা ও সতর্কতার জন্য সরকারের গ্রিনপাস বাধ্যতামূলক নীতির পক্ষে। ইতালিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, পানশালা, রেস্তোরাঁ, জিম, মিউজিয়াম, দূরপাল্লার যানবাহন ও বিমানে গ্রিনপাস বাধ্যতামূলক হয়েছে ১ সেপ্টেম্বর থেকে। এরই মধ্যে দেশটিতে ১২ বছরের বেশি বয়স্কদের ৮০ শতাংশ মানুষ দুই ডোজ টিকার আওতায় এসেছে। তবে এখনো সরকারের বাধ্যতামূলক গ্রিনপাস মানতে রাজি অনেকেই। এ অবস্থায় দেশটির ক্যাথলিক ইউনিভার্সিটি অব দ্যা সিক্রেড হার্ড গবেষণা ও জরিপ করেছে। বৃহস্পতিবার প্রকাশিত জরিপে দেখা যায় ৫৫ শতাংশ মানুষ গ্রিনপাসের পক্ষে। ৬০ বছরের বেশি বয়স্করা গ্রিনপাসের পক্ষে হলেও ৩৪ বছরের কম বয়সীরা অর্ধেক গ্রিনপাসের বিপক্ষে যেসব কর্মচারী গ্রিনপাস তৈরি করতে ব্যর্থ হবেন তাদেরকে ৬০০ থেকে ১৫০০ ইউরো পর্যন্ত জরিমানা করা হবে। কিছুদিন পর চাকরি থেকে বরখাস্ত, বেতন ও সম্মানী স্থগিত করারও কথা জানিয়েছে সরকার। সেই সঙ্গে আইন অমান্য করলে মালিক ও নিয়োগদাতাকে ৪০০ থেকে ১০০০ ইউরো পর্যন্ত জরিমানা গুনতে হবে। ইতালীয়দের মধ্যে বিভক্তি থাকলেও সরকারের নেওয়া সতর্কতা ও গ্রিনপাসের বাধ্যতামূলক পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছে প্রবাসী বাংলাদেশিরা। বিনামূল্যে সরকার কোভিড ১৯ পরীক্ষা ও গ্রিনপাস সরবরাহ করলেও ইতালির বিভিন্ন অঞ্চলে এর বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন।