কারাগারে গেলেন নবনির্বাচিত মেম্বার

লক্ষ্মীপুরে যুবদল নেতা আনোয়ার হোসেন হত্যা মামলায় মো. ইসমাইল হোসেন নামে নবনির্বাচিত এক ইউপি সদস্যের (মেম্বার) সশ্রম যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।

সোমবার (৩ জানুয়ারি) দুপুরে রায় ঘোষণার পরই তাকে পুলিশের প্রিজনভ্যানে জেলা কারাগারে নেওয়া হয়। ইসমাইল হোসেন ২৬ ডিসেম্বরের ইউপি নির্বাচনে দত্তপাড়া ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য নির্বাচিত হন। তবে এখনো শপথ নেননি। সন্ধ্যায় দত্তপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আহসানুল কবির রিপন বলেন, নির্বাচনের পর এখনো সরকারি গেজেট হয়নি। গেজেটের পর নিয়ম অনুযায়ী শপথ হবে। এর আগেই হত্যা মামলায় এক সদস্যের যাবজ্জীবন সাজা হলো। এদিকে হত্যা মামলায় ইসমাইলের বাবা সাবেক ইউপি সদস্য আবদুল আজিজসহ পরিবারের আরও ছয় সদস্যের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়। পাশাপাশি প্রত্যেকের ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ রহিবুল ইসলাম এ রায় দেন। লক্ষ্মীপুর জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) জসিম উদ্দিন  বলেন, আনোয়ার হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকায় সাতজনকে সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এরমধ্যে ইসমাইলসহ দুই আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। বাকি পাঁচ আসামি পলাতক আছেন। এছাড়া মামলার আরও ১১ আসামিকে খালাস দিয়েছেন আদালত। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আনোয়ার দত্তপাড়া ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি ছিলেন। তিনি দত্তপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান প্রয়াত নূর হোসেন শামিমের ভাই। ২০১১ সালের ৪ জুন রাতে আনোয়ার দত্তপাড়া বাজারে যান। এ সময় আসামিরা তাকে উদ্দেশ্য করে গুলি ছোড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরদিন ৫ জুন তার ভাই আশেক-ই এলাহি বাবুল বাদী হয়ে ২৫ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ১২ জনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেন। পরে তদন্ত করে ১৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশীট দাখিল করা হয়। দীর্ঘ শুনানি ও ১৪ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত আজ এ রায় দেন।