কাভার্ডভ্যানের চালকসহ ৪ জন নিহত বগুড়ায় বাসের সঙ্গে সংঘর্ষে

কাভার্ডভ্যানের চালকসহ ৪ জন নিহত বগুড়ায় বাসের সঙ্গে সংঘর্ষে

বগুড়ার শাজাহানপুরে যাত্রীবাহী বাস ও কাভার্ডভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক এবং নারীসহ চার জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও সাত জন। আহতদের বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সোমবার (৮ জুলাই) গভীর রাতে উপজেলার বনানী এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শাজাহানপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম।

নিহতরা হলেন সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার আলমপুর গ্রামের ফুড়াল হোসেনের ছেলে জামাল হোসেন, বরিশালের হিজলা উপজেলার টুংচরের টিটু খানের ছেলে কাভার্ডভ্যান চালক মো. হৃদয় (৩০), মো. শামীম হোসেন (৪০) ও অজ্ঞাতনামা এক নারী।

আহতরা হলেন নওগাঁ সদরের দীঘিরপাড় এলাকার শহিদুল ইসলামের ছেলে শাওন হোসেন (৩০), বগুড়া সদরের সিলিমপুর এলাকার আবদুল গফুরের ছেলে রেজাউল করিম (৪৫), শেরপুর উপজেলার গোপালপুর গ্রামের শাহীন মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ সৈকত (১৮), কাহালু উপজেলার কাজীপাড়ার ফেরদৌসের ছেলে সুজন মিয়া (৩৫), বরিশালের হিজলা উপজেলার টুংচর গ্রামের আলাউদ্দিনের ছেলে মো. আলিফ (৩৫), রংপুরের ডিমলা উপজেলার মোহাম্মদ আলীর ছেলে মো. অমিত (১০) এবং বাবুল মিয়া (৩৫)।

পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঢাকা ছেড়ে আসা নওগাঁগামী শাহ ফতেহ আলী পরিবহনের একটি বাস সোমবার রাত ৩টা ৪০ মিনিটের দিকে বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার বনানী এলাকায় শাহ সুলতান ফিলিং স্টেশনের সামনে পৌঁছে। এ সময় ঢাকাগামী একটি কাভার্ডভ্যান সেখানে এলে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে দ্রুতগতির দুটি গাড়ির সামনের অংশ দুমড়ে-মুচড়ে গিয়ে ঘটনাস্থলেই কাভার্ডভ্যানের চালক মো. হৃদয় ও অজ্ঞাতনামা ওই নারীর মৃত্যু হয়। এ সময় আহত নয় জনকে উদ্ধার করে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শামীম হোসেন ও জামাল হোসেন মারা যান।

বগুড়ার সিলিমপুর মেডিক্যাল পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী শহর উপপরিদর্শক (এটিএসআই) লালন জানান, বর্তমানে হাসপাতালে সাত জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ব্যাপারে হাইওয়ে পুলিশ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।