করোনায় মৃতদের ৮০ শতাংশই টিকা নেননি

এখন যারা করোনায় মারা যাচ্ছেন তাদের ৮০ ভাগই টিকা নেননি। আর শতভাগ রোগীরই আগের শারীরিক কোনো জটিলতা ছিলো। করোনায় আক্রান্ত হয়ে যারা গুরুতর হচ্ছেন তাদেরও ৮০ শতাংশ টিকা নেননি। কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি ৩০০ রোগীর উপর ২ মাসের এক গবেষণায় এসব তথ্য উঠে এসেছে।

দেশে করোনায় তৃতীয় ঢেউ তথা ওমিক্রণ শনাক্তের পর থেকেই বাড়তে থাকে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে প্রতিদিন কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে করোনা রোগী আসতো ৪০ থেকে ৫০ জন।

ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে রোগী বেড়ে দাঁড়ায় তিনশোর ওপরে। যদিও ফেব্রুয়ারির শুরু থেকে তা নেমে আসে ৩০ এর নিচে। ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে জানুয়ারির শেষ পর্যন্ত ৩০০ রোগীর উপর গবেষণা চালায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সহকারী পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল নাজমুল হুদা খান জানান, হাসপাতালটির আইসিইউ বা এইচডিইউতে ভর্তি রোগীদের বিশ্লেষণে দেখা যায়, এদের ৮০ ভাগ টিকা নেননি। তাই, বয়স্ক রোগীদের বিশেষ যত্নের পাশাপাশি যারা এখনও টিকা নেননি তাদেরকে দ্রুত টিকা নেয়ার পরামর্শ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ৩০০ রোগীর মধ্যে ডিসেম্বর ও জানুয়ারিতে মারা যান ৪০ জন, যাদের ৩২ জন করোনা ভ্যাকসিন নেননি। বাকি ৮ জন প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছিলো করোনা সংক্রমণের কয়েক দিন আগে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনায় মৃত্যু বাড়ার কারণ টিকা না নেওয়া। দেশে টিকা নেওয়ার সহজ পদ্ধতি করেছে সরকার। জন্মনিবন্ধন কিংবা ইউপি চেয়ারম্যানের লিখিত কপি নিতে গেলেই টিকা দেওয়া হচ্ছে। সারা দেশে হাতের কাছেই ইপিআই কেন্দ্রে টিকা প্রদান করা হচ্ছে।

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন যখন দেশে হানা দেয় তখন শনাক্তের সংখ্যা হু হু করে বাড়লেও মৃত্যুর সংখ্যা ছিল কম। কিন্তু গত কয়েক দিন ধরে শনাক্তের সংখ্যা কমলেও আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, যারা মারা যাচ্ছেন তাদের বেশির ভাগই করোনা প্রতিরোধী টিকা নেননি। এজন্য করোনার প্রকোপ থেকে রক্ষা পেতে টিকা গ্রহণের প্রতি জোর দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। যারা টিকা পাননি তাদের দ্রুত টিকার আওতায় আনতে সরকারও চালাচ্ছে জোর তৎপরতা।

Related Posts