এইডসের ওষুধ আবিষ্কার করেছেন ইসরায়েলের একদল গবেষক

অবশেষে মরণব্যাধি এইচআইভি এইডসের কার্যকরী প্রতিষেধক আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছে বলে দাবি ইসরায়েলের তেল আবিব বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষকের। মার্কিন বায়োটেকনোলজি কোম্পানি মডার্নার এইচআইভির ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলাকালীন এমন তথ্য দিল ইসরায়েলের গবেষকদল।

ইসরায়েলের তেল আবিব বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্য জর্জ এস ওয়াইজ ফ্যাকাল্টি অব লাইফ সায়েন্সের নিউরো-বায়োলজি, বায়োকেমিস্ট্রি ও বায়োফিজিক্সের গবেষকরা, জিন এডিটিং পদ্ধতি কাজে লাগিয়ে আবিষ্কার করেছে এমন একটি ওষুধ; যা সারিয়ে দিতে পারে এইডসের মতো দুরারোগ্য ব্যাধি। বিশ্বখ্যাত বিজ্ঞান পত্রিকা ‘নেচার’-এ সম্প্রতি প্রকাশ পেয়েছে এই ওষুধ সংক্রান্ত গবেষণাটি।

 
প্রকাশিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বিজ্ঞানী মহলে সাড়া পড়েছে। হিউম্যান ইমিউনো ডেফিসিয়েন্সি ভাইরাস বা এইচআইভি একবার মানব শরীরে প্রবেশ করলে তা আক্রমণ করে দেহের ইমিউনিটি ব্যবস্থাকে। দেখা দেয় অ্যাকুয়ার্ড ইমিউনো ডেফিসিয়েন্সি সিনড্রোম, যাকে এক কথায় বলে এইডস। 

এখনও পর্যন্ত এই রোগ সম্পূর্ণভাবে নিরাময় করার মতো কোনো ওষুধ বা চিকিৎসা পদ্ধতি আবিষ্কার হয়নি। তাই এই আবিষ্কারটি সত্যি প্রমাণিত হলে, যা চিকিৎসাক্ষেত্রে একটি মাইলফলক হতে পারে বলেই মত বিশেষজ্ঞদের।
কীভাবে কাজ করে এই ওষুধ?
বিজ্ঞানীদের দাবি, একটি মাত্র ইনজেকশনেই মিলতে পারে অভাবনীয় ফলাফল। মানবদেহে বি-সেল নামক এক বিশেষ ধরনের শ্বেত রক্তকণিকা থাকে যা অস্থিমজ্জা থেকে উৎপন্ন হয় ও বিভিন্ন ভাইরাস ও ব্যাক্টেরিয়ার সঙ্গে লড়াই করে। বিজ্ঞানীরা সিআরআইএসপিআর নামক একটি পদ্ধতি ব্যবহার করে, এই বি-সেলের জিনগত উপাদানে বদল এনেছেন। এর ফলে, ওই বি-সেলগুলো ভাইরাসের সংস্পর্শে এলেই বিপুল পরিমাণ অ্যান্টিবডি উৎপাদন করছে, যা ধ্বংস করে দিচ্ছে ভাইরাসটিকে। 
বিজ্ঞানীদের আশা, এখানেই শেষ নয়, আগামী দিনে এই পদ্ধতি ব্যবহার করে ক্যানসারের মতো রোগেরও ওষুধ তৈরি করা সম্ভব।

সূত্র: আনন্দবাজার

Related Posts