ইবিতে বন্ধুকে দড়ি দিয়ে বেঁধে জন্মদিন পালন

বন্ধুর জন্মদিন। তাকে চমকপ্রদ উপহার দিতে কিংবা খুশি করতে কতই না আয়োজন করে কাছের বন্ধুরা। কিন্তু ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) যে জন্মদিন পালনের ঘটনা ঘটেছে, তাতে অবাক না হয়ে উপায় নেই।

বৈদ্যুতিক খুঁটির সঙ্গে বন্ধুকে বেঁধে রেখে জন্মদিন উদযাপন করেছে তার সহপাঠী ও বন্ধুরা। এসময় কেউ তাকে ডিম মারছে, কেউবা আটা মাখাচ্ছে, আবার কাউকে চড়-থাপ্পড় দিতেও দেখা যায়। তবে এদের কেউই ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নন। ক্যাম্পাস সংলগ্ন দুঃখী মাহমুদ ডিগ্রি কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণিতে অধ্যয়নরত তারা। স্থানীয় হওয়ায় ক্যাম্পাসে অবাধে যাতায়াতের পাশাপাশি সহসাই এ ধরনের কর্মকাণ্ড করছে তারা।

জানতে চাইলে জন্মদিন পালনকারী শিহাব ও মামুন জানায়, বন্ধুর জন্মদিন পালনে এ ধরনের উদযাপন এখন ট্রেন্ড। আমরাও মজা করতেই এমন করছিলাম।

তবে তাদের বন্ধু রিমন জানায়, এ ধরনের উদযাপন করবে বন্ধুরা আমি ভাবিনি। আমি প্রথমে মজা পেলেও পরবর্তীকালে বিরক্ত হয়েছি। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে বহিরাগতদের এমন কর্মকাণ্ডে বিরক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও। সিয়াম নামে এক শিক্ষার্থী জানান, প্রায়ই বহিরাগতরা ক্যাম্পাসে ছাত্রীদের উত্যক্ত করার পাশাপাশি ছাত্রদের সঙ্গেও নানা বিষয়ে বাকবিতণ্ডায় লিপ্ত হচ্ছে। প্রশাসনের পদক্ষেপ জোরালো না হলে যে কোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। উদ্ভট এই জন্মদিন পালনের বিষয়টি দেখে প্রায় অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী প্রতিবাদ জানান। এ নিয়ে তাদের সঙ্গে তর্ক-বিতর্ক শুরু হয়। বিষয়টি জানতে পেরে সিকিউরিটি অফিসার প্রক্টরিয়াল বডিকে জানালে বহিরাগতদের আটক করেন তারা। পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য প্রক্টর অফিসে নিয়ে যাওয়া হয়। এ বিষয়ে ইবির সহকারী প্রক্টর ড. শফিকুল ইসলাম বলেন, এ ধরনের উদযাপন অবশ্যই কাম্য নয়। জন্মদিন মানুষের জীবনে একটি সুন্দরতম দিন। নতুন প্রজন্ম এই দিনটিকে এমন কুৎসিত উদযাপনের জন্য বেছে নেওয়াটা সত্যি দুঃখজনক। আমরা তাদের বুঝিয়েছি। তারা ভবিষ্যতে ক্যাম্পাসে এ ধরনের কর্মকাণ্ডে জড়িত না হওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

Related Posts