অবশেষে অমর একুশে বইমেলা শুরু

দীর্ঘ প্রতীক্ষা ও টানাপোড়েনের পর অবশেষে উদ্বোধন হলো ৩৮তম অমর একুশে বইমেলার। মঙ্গলবার বিকেল গণভবন থেকে ভার্চ্যুয়ালি বইমেলার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার-২০২১ প্রদান করেন।

এবারের অমর একুশে বইমেলা ২০২২ এর মূল প্রতিপাদ্য ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী’। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় মেলাকে ভিন্ন মাত্রা দিয়েছে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী।

উদ্বোধন শেষে বক্তব্য প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রস্তুতি থাকা সত্ত্বেও বইমেলা শুরু করতে দেরী হলো। তারপরো মেলা উদ্বোধন করতে পারছি এটাই বড় কথা। বাংলা আমাদের মায়ের ভাষা। পাকিস্তানী শাসকরা এই ভাষা কেড়ে নিতে চেয়েছিলো। তারা বাঙালির নিজস্ব স্বকিয়তাকে স্বীকুতি দিতে চায়নি। এছাড়াও ভাষা আন্দোলনে শেখ মুজিবের অবদান মুছে ফেলার চেষ্টা হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এই মেলা আমাদের প্রাণের মেলা। বইমেলা খুবই আনন্দের বিষয়। ডিজিটাল যুগে প্রবেশের স্বার্থে সবই জানতে হবে। তবে সরাসরি বই পড়ার আনন্দের চেয়ে বেশি কিছু নেই। এসময় সকল উদ্যোক্তাকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী।

এসময় প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, যেহেতু বইমেলা ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি শুরু হয়েছে তাই মার্চের মাঝামাঝি অর্থাৎ ১ মাস চালানাে যেতে পারে। এ বিষয়ে সকলের পরামর্শ নিয়ে সিদ্ধান্ত জানানোর কথা বলেন তিনি।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে এবারের একুশে বইমেলা শুরু হচ্ছে ফেব্রুয়ারি মাসের মাঝামাঝিতে। ছুটির দিন ছাড়া বইমেলা প্রতিদিন দুপুর ২ টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। ছুটির দিন বইমেলা সকাল ১১ টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত চলবে।

এছাড়া মহান একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে মেলা সকাল ৮ টায় শুরু হয়ে চলবে রাত ৯ টা পর্যন্ত। করোনা সংক্রমণ কমলে বাড়ানো হতে পারে মেলার সময়।

বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ এবং সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের প্রায় সাড়ে ৭ লাখ বর্গফুট জায়গা নিয়ে আয়োজিত ৩৮তম অমর একুশে বইমেলা। মেলায় মোট ৩৫টি প্যাভিলিয়নসহ একাডেমি প্রাঙ্গণে ১০২টি প্রতিষ্ঠানকে ১৪২টি এবং সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে ৪৩২টি প্রতিষ্ঠানকে ৬৩৪টি ইউনিট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে এবারের মেলায়। অনুষ্ঠানস্থল এবং বাহিরে বসানো হয়েছে মোট ৬টি এলইডি স্কিন।

Related Posts